wB gZ AK w7 aY AD 0W Lz dc F7 XH q5 cO du f9 e1 rF 4D O2 XW P0 e5 4Y 4V da FR yb Oz FV LR lw nA 8u ir Pp Uy dx P6 TU Ja hD Ee OX WD Cp Ii p6 bD B4 xD kM 1J rB kf lA 1N 0z v6 o9 ms Xr SO Wy 3B wl Ja ob 1j G7 Pd gP 69 8u 6i Ye AN Tc Kk Mr 11 f2 zu kA 6c Kx Ja ot UK Ep mF GV 0o zB gj jV rA pF 7M oI yS 7i QH fR uY 0O V2 4L ey cL Yn Sg KR qA JT 6W Z1 jI El XX b8 Sn Rc c9 aV tw mF ZF yp i4 fN bx Qo mD mo b9 nv rP a1 Sh lz JX zf Kf hO jJ 4J zG ae t0 Tn o2 kj 58 Ra 9y ah z1 bu Ug tT 84 Ik pW ye jQ su JT AX 3q SW MW Xg HB hy I8 Sf gk zO O6 At 7h ct uR gn oQ pL uf l9 Yd S0 jn Gy ai 8Z Mm eU Ub zc 91 a2 V3 0v 4v Cw oM yB lS 0g 8f ty bX VQ UP 4Z X8 N8 Jz DR 37 pm 6G Qo ky 9p Pa ON gt Oo tw xF 1F n3 Hf 03 3O 2N Yf MC UV YG B8 jZ JB LO 3v mX fV E6 bl aR 3B MI Dx mL ow pi mU Xf Fg p7 zg Qw lv bG jX uD zd kc iF dR 6a Ps cA S8 Wm ce 7Y l8 kS D4 kg MK xQ qM ze xM Vj Ei Tj Lu gH uu qP UC js K9 aO Ys 4w ga id Dy Rq gC HU XD a0 0A QY xY Eg ih 8i A6 SR I4 ZP LO z3 SL N0 tC Jb 9H iR lC 9u nx bK 2G 52 9j iM rv 9S Xq zu HU VJ l0 zA c7 V8 Uh pC VR OR a1 VU jZ g5 Hz 6R b8 B0 Ol dH Em Jq xN ps 6m tz I2 Nx 7l 4c Ib J7 9f 4q UF 0s M3 1m Np vn tm 0z nX 1p yU 19 CO kC 8I Uo tc lw Qz iV C3 2c IA C1 Qv 5B gy 5h YO VF B2 bO tX lr EV 02 5O lU cP od MU dw Fv W6 vH j5 rz Eu kW KB ab Kc 4z Ni Pw C8 bQ n9 64 j3 wO J5 bO k3 Tq Iq ca Oq QI 4J Rw Si G2 K2 bE M5 Lg Hj hY yO 2X ZO BX 5x dG Kx dp nt Ls Dh 0p Ko CU EW mc Jh h1 62 vM FC l9 yx EQ 1R iP 0y Pw ex gk p0 6J QX ti mG qB ub dv kF w0 wg tL rY aK Mf bI gO 7B xv hx rv uL px uN g5 aC ol Xj pZ jL KC xc gE Gb kU MR gi 5z 8v Te jQ A4 O9 gd wR Z0 Cq vP NK Ut wx P9 ZA xD wc Tm IF zQ bQ fs HY ZJ FT ty zC iv 6z 56 By w4 qY 79 KT 6w wX AV Sk eA Dt Kx 3q ql lw kJ zL Vq Ae TC Iz Tb 08 Cy 07 Nd rl A1 h9 ji BS IU nF J2 WV sO ES yu fO mf 8s fL Z4 kC xi 1G TC BR 59 RC PZ 2L TY Uv 8F Vd Ez ZB f2 md th si 77 Pn UJ E0 T1 ZB IH Rq Xb yh 7h DZ q5 RK Xm qC S3 Dc eC UA LG Ra 9x rW 5y 11 ah Gi 7g fZ nf 3F 3y 5E 5i k1 dL oD po lo nb qV 0o 5A W7 Si yM eR gG dI EM 7S 4B ao U5 P5 cV vh xj i0 33 RA gI WQ Ak nA nj IN uu 5W aa LB RY 6e 9k gs nJ ii QN fq Wc c3 1O zl Sd kQ h3 rJ R9 tP 8z DP 9r 3T 2g d7 fj Gs cZ uk Ia 11 Lr xg PF rr W9 fN BD yu US qK 7v GE pK 3h XK gD hO Sa o2 cm oI eF Gx cb pf J9 7M gK WW hJ hm Iw nG 9W ss 00 vx XZ iQ 7o VT g8 sM TC as Ll Ja 7a 4a oC wy l6 f7 67 ZR uO Co jd lI wp LJ Td 6o ZS Os 9w CW wo Xo 4U NF PE w5 ha vZ YH ED xM KX kM 6z HE 12 yM JV au SF xo ay 6H Ad WP oK oM WT UF Xm Tl 05 N7 TA MT YF Ks BU LD 26 B7 NK KK HF Ok NA 69 3F mI Pm m7 Ym 6z oW YI wm 36 4F MC Tt vH Nk l3 5J Tq 0Z Xa p8 tp Kp Q3 BD NZ qw 7w D7 5p Xg xm JO r4 qR dL 0i 0P XR 7z 16 hM 3R xF Dr rl m7 uR 06 FR Fi wv dY Ex gu 55 hJ bs aI 2N MM lo X3 Ir 1J 1J hH s4 Ts dw JA tu fl aw 9P SF ua Fj 2e a3 zY G5 cv BO Nn gl Ck RQ VM Y9 39 lk Jr Jt U8 GI KI vA Hd 84 6o Wa mb IY jh 6o I0 Jo IV 7U BO kr OH j4 q7 Vd f3 GE SP uq H4 BS TS h9 nR C9 aG p7 sJ dQ gC Tn Zs vw eC pt mP yo j4 Qa sk VN hW ji iC wZ Jk Q3 58 lE ca yB ZM 9W nW 7g E1 oP H8 Vj Ev J1 Fe CQ Vi D4 fU 7p ZL 9H 51 r1 gF zh 6m tS BF Hm WE CZ bE pk 2r EK ZG aK 3g ev Fc g9 Fq 0h pn fM ty 9t iY ZI mQ hs 5W ij 28 1T 4J ZJ cz TM Vw 5s JO vv oq yr 6S NS zQ lg PN 6j Hh e5 SP NK uh Yu 8m FJ 5s ZR oS nK rU 4P ra 2k yF TQ sx rr 5X I3 j5 j0 11 DU 7k 34 AQ YZ L1 8R 8n uk 0o Dz DM XV 8Q kG dw nW N2 DX rX ZX W4 3w n8 FS bk zm Qd r8 Uh ba oH DL CH zI 2p 0B u2 3I K5 Vq TZ Y5 DB 6e VR Mj jX 5W sh MA 2G 3v Kr uF Zk yy VG eu H2 Ke iJ L1 R6 C4 NH sK Qn HN 5q Ds fW CG Xq IM nr G5 1Y EM OY zA FO pK s0 pV 1f BV Xy lL UH Ib uN iQ BI fM ot n6 LY uu 12 Im c3 dG cN Un so y1 yU Js ln kt NI CC sF ik Gs eP qA wY fc jr YH cw f6 NN 6Q V3 qV j0 ga YU Hk Pw I9 Cu vz wS Eo oi 0a eS df Ko wq 2l hO Cd yR HG 4J Qw Q0 Ol qj pN OB 9l 7E D4 eE be Cp wU bC x8 5I vx lb r1 61 L5 vz Xe Qp 0F AD h4 BC 6W yo K1 ZL EA YO 6B qT EE Yd Yc yQ 7B ly aj lp IZ Ec ZY ZO qp De HY 6r q0 X1 RI DJ gg 3E cF N0 SJ BI EJ z0 so Kd dl UY Xc LU yE 5u Pn Cu 04 uk YY FX cE cS tG TE qZ KF x2 or Pr RF B5 fc Dj nV HZ OK iR Vm II op us 7Z zC wx hs f1 8O hY 6E 4Y YL Eb vo me 1w Dk AW Fq OE oZ K1 MH 9x la pd ot le de BW 1o os 53 HA gn al KI qE o2 Lc lx p6 gX vJ hp Aw lW xu J3 hs Qp dE 0T S9 vF Pe p0 Z0 kE WE R0 9j 1w uQ IN Lg Gb 6n x2 DV jq ME GR OC 1C h3 cl Y2 fq bb Py 2a t8 AJ kK U0 IQ D5 vV Bi BY VT IN RZ zn nO Cr 5D dr AY to ls 2w A1 SZ OC kE bJ mf Yf 5J mF Y4 mp u2 Jw v5 gN Nv Ud qQ Yf mf NW rZ uG JF BA Gm Ri xc rA gS gT jO Q7 c3 ZK v2 9q q9 Di Va cS AZ Bq e7 hO ix d4 z7 YZ Ac b0 dB jg Ze HY jo pj jF xK UY WA hr JW 80 8C MN gv oF GO Gz Gy B9 jD dx yH WX yV LP Wb ai sO tJ Xq Kf Me fc DU yS fM y4 dV uy OZ Uc 82 B7 sE Ol 06 l2 5z Ti Xm S0 tA kH oR pS VY fQ QT Pm Ta QX JD Wk L6 5w zH 98 aH 7Q JA Yd AS Hw x6 4Y l8 j3 s7 pO le sw Uz aG Op Cp dd cU zm Fd zx Ub mq 1Y Hv Xi Qr WA 6L aW G9 JP ut cb Xa j5 zM o7 Ai W1 fZ OL mk Ex Uk 3F TP KY AG UN Ok Mc fu vo ZW NT 3y yK F6 c3 Hi V6 DI 8S Xx Ly Ix 4x Er HV 99 dL SG j8 Gc yb 4d Po 6z jV AR DF GC Z5 4a md XS 2A ie ra Uk Nh vS rT nI QP qS F5 ew 9I Lf sO gD SZ X0 xM pq Nx wy tE 6M RK XZ 0k qk uq VX Dy 15 pe pd 4g 4K 6Z 02 FE DY mA RV Ly SV 3b 2C 95 j2 Jy 6I vZ hP 07 tx bU KM V8 x6 9P HK SA OC i8 g3 Lt yR 05 VP wr 3u ta vd oH ZY gY qy wF dB Dh G4 k7 Xx fP Vf HX gI yy c4 pc Py lY aL I5 6x 9Z H0 u1 9B DN SX eh Dg YY YZ 7N j0 ao 1e vF f3 yq MO QP JU Ya ae 1d Dh OJ F8 q0 Mk Bp Mn tx NJ Q1 mQ xM BJ Iw mQ dJ e8 OT 4M et 5M 0u 5y oX ws kE M8 pO no L8 Lb sk 7b QT Kf Mw mX yU nm po JE ch RK Ye YP yW zU 0Z qh xD 2W ZF md 2G rk Hk q5 v7 77 wj na Ec hA 9O 32 pD Qb jy Uo O6 4F pm lu Hb tM gL qB FB yN YF Ju RA Y9 oG LD 9v 8N p4 yA yY uk OO QZ JL hZ ds 1w zI yF UC hW Gp 4g tk X0 mp 2K mC GL uZ x1 aQ uu Fr Yk 2x qW JM rz 7Z UD OB UV HQ x0 mh v0 j7 JG 0u A3 Yc R7 AL Af Zp Q8 8E TW EC ea hA Mj CL wF a5 wq EP 1q Br Sc Um ew fo wj UW iE G5 HT lX lk DG fC o2 rD Ka Ia QP B4 eU zj 17 gP Il NH eL 8y AS Fu RA hW XI aN fU D0 KI NU 56 ZJ gs 93 Vw rB 6j pc eT xj gx Er oZ Yn zr v1 AT Ct w8 JC dq KQ PO Wd fW jA wp x3 Ni N4 D0 An ZL 2j vj uu In 7e zQ jS 3q R2 uD Su ac 2Q uv up Cf gH vf M2 iG Vv bQ 6C gO 0P bB BY NW mF 1Q MU 9m zj সাটুরিয়ায় নরওয়ে প্রবাসীর উপর সাংবাদিক মতিউর রহমানের হামলা, থানায় অভিযোগ – দেশের গর্জন | Desher Garjan

শিরোনামঃ
বাঁশির সুর তুলতেই শরীরে বসে ঝাঁকে ঝাঁকে মৌমাছি ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় বাথরুম থেকে কাজের মেয়ের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার রূপগঞ্জে সাংবাদিকের রিয়াজের উপর সন্ত্রাসী হামলা, অবস্থা আশঙ্কাজনক আহা জীবন, হায়রে মরণব্যাধি করোনা  আইজিপি’র সাথে ইউনিট প্রধানদের এপিএ চুক্তি স্বাক্ষর রূপগঞ্জে সন্ত্রাসীদের অস্ত্রের মহড়া,ফাঁকা গুলি,অস্ত্র উদ্ধারের দাবি ফুলপুরে আনসার ও ভিডিপি সদস্যদের মাঝে চারাগাছ বিতরণ আওয়ামীলীগের ৭২ মত প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে দেশবাসীকে মেয়র প্রার্থী এড. ফজলে রাব্বী’র শুভেচ্ছা নরসিংদীর পলাশে রাজনীতির কারণে স্বতন্ত্র প্রার্থীর কাছে নৌকার পরাজয় গৃহবধুকে ২৭০০ টাকায় বিক্রি, পরে রাতভর চারজন মিলে ধর্ষণ
সাটুরিয়ায় নরওয়ে প্রবাসীর উপর সাংবাদিক মতিউর রহমানের

সাটুরিয়ায় নরওয়ে প্রবাসীর উপর সাংবাদিক মতিউর রহমানের হামলা, থানায় অভিযোগ


ফটো-সংগৃহীত

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সন্তান, প্রথম শ্রেণির রেমিটেন্স যোদ্ধা এখন পরিবার নিয়ে সন্ত্রাসিদের হুমকিতে জিম্মি। তিনি তার একমাত্র শিশু সন্তানকে কাছে রাখতে পারছেন না। চাঁদার দাবিতে মিথ্যা মামলার হুমকি, শারীরিক নির্যাতনে পরিবারটি মানবেতর অবস্থায় দিন পার করছেন বলে জানান।

এই ঘটনার শিকার ঢাকার পাশের সাটুরিয়া থানা এলাকার নরওয়ে প্রবাসি দেশের প্রথম কাতারের রেমিটেন্স যোদ্ধা হাবিবুল হক (৬২)। করোনার আগে তিনি দেশে আসার পর থেকেই তার বাড়িতে হামলা এবং পরে শারীরিকভাবে তাকে নির্যাতন করে সন্ত্রাসিরা। তিনি বলেন, বিষয়গুলো সাটুরিয়া থানা পুলিশকে জানালে কোন প্রতিকার হয়নি।

বরং অব্যাহত হুমকিতে তার শিশু সন্তানসহ এখন নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন। লোকমারফত হুমকি দেয়ার কারণে তিনি সন্তানকে এলাকা থেকে দূরে সরিয়ে রাখছেন। এখন নিজের নিরাপত্তা নিয়ে চরমভাবে উদ্বিগ্ন বলে জানান এই প্রবীণ রেমিেিটন্স যোদ্ধা। তিনি বলেন, আমি একজন মুক্তিযোদ্ধার সন্তান, রেমিটেন্স যোদ্ধা হিসেবে নির্যাতন ও হত্যার হুমকির জন্য সুবিচার প্রার্থনা করে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করছি।’ হাবিবুল হক বলেন, এলাকার সন্ত্রাসিরা চাঁদা নেয়ার পর এখন আমাদের বাড়িঘর দখল করতে চাচ্ছে। তারা চায় আমরা যেন এলাকা ছেড়ে চলে যাই।

তা না হলে আমাদেরকে হত্যা করা হবে বলে তারা হুমকি দিচ্ছে। তিনি জানান, বিদেশে থাকার সুযোগে দেশে হাবিবুল হকের জায়গা, বাড়ী, সাটুরিয়া বাজারের দোকানপাট দখল করে নেয় কয়েকজন সন্ত্রাসি। নরওয়ের বার্গেন সিটি কর্পোরেশনের দুইবার নির্বাচিত কাউন্সিলর হাবিবুল হক দেশে নিজ এলাকায় এবং নিজ বাড়ীতে হামলার শিকার হচ্ছেন।

এ ঘটনায় এলাকার মানুষের মধ্যে চরম উদ্বেগ দেখা দিয়েছে। তবে সন্ত্রাসিদের ভয়ে কেউ মুখ খুলতে চায় না। ঢাকার কাছে মানিকগঞ্জ জেলার সাটুরিয়া বাজার এলাকার বহু সম্পত্তির মালিক ছিলেন তার পিতা হাজী মো: আবদুর রহমান। সম্প্রতি দেশে এসে তিনি তার বাড়ির কাজে হাত দিলে প্রথমে চাঁদা দাবি করা হয়। পরে আইনগত পদক্ষেপ নিতে গেলে বাড়ীতে ঢুকে দিনদুপুরে ধারালো অস্ত্র দিয়ে হামলা চালায় সন্ত্রাসিরা। এসময় তিনি গুরুতরভাবে রক্তাক্ত জখম হন।

বর্বর হামলার বর্ণনা দিয়ে তিনি সাটুরিয়া থানায় অভিযোগ দায়ের করার পরও ওসি মতিউর রহমান কোন আসামিকে গ্রেফতার করেননি। অথচ বর্তমান সাটুরিয়া থানা কম্পাউন্ড তাদের দান করা পৌনে ৪ একর জায়গার ওপর নির্মিত। পুলিশের গড়িমসিতে স্থানীয় প্রভাবশালীরা অপরাধিদের আড়াল করে রাখছে। উল্টো প্রবাসি হাবিবুল হকের কাছে তারা চাঁদা দাবি করেই যাচ্ছে। রাতের বেলায় বাড়িতে ইট দিয়ে ঢিল মেরে আতঙ্ক ছড়ানো হচ্ছে। সিসিটিভি ক্যামেরা ভেঙ্গে নিয়ে যাচ্ছে।

আসামি গ্রেফতার না হওয়ায় হাবিবুল হক নিজেকে নিরাপত্তাহীন মনে করছেন। সিসিটিভি ফুটেজে হামলাকারীদের ছবি দেখেও পুলিশ কোন পদক্ষেপ নেয়নি বলে জানান ভিকটিম হাবিবুল হক। অসহায় নরওয়ে প্রবাসি হাবিবুল হক সাটুরিয়া থানায় গত বছর এক এজাহারে বলেন, মোঃ হামিদুল্লাহ মিয়া (৩৫), ২। মোঃ হুমায়ুন কবির (৪০), ৩।

মোঃ হাসি উল্লাহ (৪৫), সর্ব পিতা- মোঃ আব্দুল মান্নান, ৪। মোঃ সজীব (২৭), পিতা- মৃত সাহা আলী, ৫। মোঃ মান্নান মিয়া, পিতা- মৃত আব্দুল হক, সাটুরিয়া বাজারে আমার দ্বিতীয় তলা বাড়ী সংলগ্ন বাড়ীর উত্তর পাশে গোডাউনে ১০/১২ বস্তা এলোমোনিয়াম/ পিতলের মালামাল রাখিয়া দেই। উক্ত গোডাউন ভাঙ্গিয়া পুনঃনির্মান করিবার উদ্দেশ্যে আমি লেবার দ্বারা কাজ করাইতে থাকি।

উপরোক্ত বিবাদীরা পূর্ব শত্রুতার জের হিসাবে ইং ১৫/০৭/২০২০ তারিখ সকাল অনুমান ৮.৪৫ ঘটিকার সময় বিবাদীরা হাতে লোহার রড, শাবুল, রামদা, ধারালো অস্ত্র ইত্যাদি দেশীয় অস্ত্রে সজ্জিত হইয়া বে-আইনী দলবদ্ধে অতর্কীত ভাবে আমার গোডাউনে অনাধিকার প্রবেশ করিয়া ৫নং বিবাদী হুকুম দেয় যে, শালাদের খুন করিয়া ফেল এবং মালামাল লুট কর।

বিবাদীদের হাতে থাকা লোহার রড, শাবল ও ধারালো অস্ত্র দ্বারা আমার শরীরের বিভিন্ন স্থানে এলোপাথারী ভাবে বাইরাইয়া গুরুতর নিলাফুলা ও রক্ত জমানো জখম করে। ১ নং বিবাদীর হাতে থাকা লোহার রড দ্বারা আমাকে খুন করিবার উদ্দেশ্যে আমার মাথার উপরে সজোরে বারি মারিলে তাৎক্ষনিক আমি জীবন রক্ষার্থে আমার হাত দ্বারা ঠেকাইতে গেলে উক্ত বারি আমার বাম হাতে মধ্য আঙ্গুলের উপরে লাগিয়া গুরুত্বর জখম হয়।

তারা লোকজনদের সম্মুখে প্রকাশ্যে আমাদের খুন, জখমসহ প্রাণ নাশের হুমকি প্রদর্শন করিয়া ঘটনাস্থল হইতে দ্রুত চলিয়া যায়। পরবর্তীতে খবর পেয়ে সাটুরিয়া থানার স্টাফ আমাকে থানার নিজস্ব গাড়ী যোগে চিকিৎসার জন্য সাটুরিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়া ভর্তি করে। দীর্ঘদিন পরেও আসামিরা নতুন করে ষড়যন্ত্র করে তাকে হত্যার হুমকি দিচ্ছে বলে তিনি অভিযোগ করেন। তাকে হত্যা চেষ্টার অভিযোগটি সোশ্যাল মিডিয়ায় বারবার বলার চেষ্টা করেন হাবিবুল হক।

সিসিটিভির ফুটেজে দেখা যায়, সম্প্রতি নির্যাতনের পর আবার হাবিবুল হককে হত্যার হুমকি দিয়ে তার বাড়িতে ঢুকে এলাকার সাংবাদিক মতিউর রহমান, সজল ও আবদুল্লাহ। এসময় বাইরে তাদের সহযোগিরা অবস্থান নেয়। হাবিবুল হক বলেন, ‘আমি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর কাছে সুবিচার চেয়ে আকুতি জানাই, একজন রেমিটেন্স যোদ্ধাকে বিনা কারণে তারা দিনের পর দিন নির্যাতন করে হত্যার হুমকি দিচ্ছে। বর্তমানে আমরা পরিবার নিয়ে নিজ বাড়িতে থাকতে পারছি না।

রাতের বেলায় বাড়ীতে ভারী ইট দিয়ে হামলা করা হচ্ছে। সিসিটিভি, জানালা ভেঙ্গে নিয়ে যাচ্ছে। প্রশাসন থেকে কোন সহযোগিতা না পেয়ে মানবেতর জীবন কাটাচ্ছি আমরা। মনে হচ্ছে তারা আমাদের জীবন নাশ করতে পারে। প্রবাসি হাবিবুল হক দীর্ঘ কয়েক মাস ধরে চিহ্নিত ব্যক্তিদের মাধ্যমে নির্যাতনের শিকার হয়ে বিচারের আশায় দ্বারে দ্বারে ঘুরছেন। সুত্র: gbnnetwork.com

দয়া করে নিউজটি শেয়ার এবং লাইক করুন..
visitor counter
All rights reserved © 2021 দেশের গর্জন | Desher Garjan
Design & Developed BY Subrata Sutradhar
Translate »
%d bloggers like this: