সব ঠিক থাকলে ৭ ফেব্রুয়ারি করোনার টিকা

সব ঠিক থাকলে ৭ ফেব্রুয়ারি করোনার টিকা নেবো: জাহিদ মালেক


ফটো-সংগৃহীত

গর্জন ডেস্কঃ আগামী ৭ ফেব্রুয়ারি সারাদেশে জাতীয়ভাবে করোনাভাইরাসের টিকাদান কার্যক্রম শুরু হবে। সেদিন রাজধানীর গ্যাস্ট্রোলিভার ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালে এই টিকা নেবেন বলে বাংলা ট্রিবিউনকে জানিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক।

শুক্রবার (৫ ফেব্রুয়ারি) সন্ধ্যায় এই তথ্য জানান তিনি। এই বিষয়ে জাহিদ মালেক বলেন, ‘চিন্তা ভাবনা তাই করেতেছি। আমাদের আরও কেবিনেট কলিগরা নেবেন সেদিন। আমরাও আছি, আশা করতেছি, সেটারই ব্যবস্থা চলছে।’

তিনি বলেন, ‘সারাদেশে একযোগে ভ্যাকসিন নেওয়া শুরু হবে। প্রতিটি জেলায়, কিছু কিছু উপজেলাতেও পর্যায়ক্রমে যাবে টিকা। ভ্যাকসিন দেওয়ার জন্য সকল প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে। অন্যান্য সব সরঞ্জামসহ ভ্যাকসিন সব জায়গাতে পৌঁছে গেছে। কর্মীরা প্রস্তুত, তাদের প্রশিক্ষণ শেষ। উপজেলা প্রশাসনসহ জেলা প্রসাশনকে এই বিষয়ে সম্পূর্ণ প্রস্তুতি নেওয়ার জন্যও বলা হয়েছে।

মানুষের ভীতি কাটানোর জন্য ভ্যাকসিন নিচ্ছেন কীনা জানতে চাইলে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, ‘ভয় কাটানোর জন্য ঠিক না, আমাদেরও ভ্যাকসিন নিতে হবে; আপনাদেরও নিতে হবে। আর আমাদের টিকা নেওয়ার মাধ্যমে মানুষের মনের ভয় যদি কাটে, তাহলে তো ভালো কথা।’

এই টিকা নিয়ে তিনি আরও বলেন, ‘অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রেজেনেকার তৈরি এই কোভিশিল্ডতো কেবল বাংলাদেশের মানুষই নিচ্ছে না, ভারতে লাখ লাখ মানুষ এই টিকা নিয়েছে, ইংল্যাল্ডে নিচ্ছে, অন্যান্য দেশ নিচ্ছে।’

কিছু মানুষ গুজব ছড়াচ্ছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘আল-জাজিরাওতো অনেক কিছু করছে। এটাতো আর তারা এমনি এমনি করে না, সরকারকে ব্যর্থ দেখানোর জন্য, বদনাম করার জন্য করছে।’

যখন এই করোনার শুরু হয়, তখনও উল্টাপাল্টা অনেক কথা হয়েছে মন্তব্য করে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, ‘শুরুতে অব্যবস্থাপনার কথা বলা হয়েছে, আপনারা বলেছেন। কিন্তু ব্যবস্থাইতো নাই, সেখানে অব্যবস্থা কী আবার? করোনার চিকিৎসা ব্যবস্থাতো তখন পৃথিবীতেই ছিল না। তাহলে বাংলাদেশ কী ব্যবস্থা আগেই করে বসে থাকবে?’

প্রসঙ্গত, গত ২৭ জানুয়ারি কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতাল ২৬ জনকে দিয়ে প্রতীক্ষিত করোনাভাইরাসের টিকাদান কর্মসূচি শুরু হয়। তার পরদিন এই হাসপাতালের সঙ্গে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল, মুগদা জেনারেল হাসপাতাল, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়, কুয়েত বাংলাদেশ মৈত্রী সরকারি হাসপাতালে টিকা দেওয়া হয় ৫৪১ জনকে।

দুদিনে দেশের পাঁচটি হাসপাতালে চিকিৎসক, নার্স, ওয়ার্ড-বয়, হাসপাতালগুলোতে নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা নিরাপত্তারক্ষী, টেকনিশিয়ান, টেকনোলজিস্টসহ ৫৬৭ জন টিকা নিয়েছেন। এই ৫৬৭ জনের মধ্যে আরও আছেন সংস্কৃতি বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ, আইসিটি বিভাগের প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক, স্বাস্থ্য সচিব মো. আব্দুল মান্নান, তথ্য সচিব খাজা মিয়া, সাবেক যোগাযোগ মন্ত্রী সৈয়দ আবুল হোসেন এবং সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা ওয়াহিদ উদ্দিন মাহমুদ।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার এবং লাইক করুন..
visitor counter
All rights reserved © 2021 দেশের গর্জন | Desher Garjan
Design & Developed BY Subrata Sutradhar
Translate »