শিরোনামঃ
আওয়ামী লীগের বহিষ্কৃত নেত্রী হেলেনা আটক বাংলা চলচ্চিত্রের কিংবদন্তি ববিতার আজ শুভ জন্মদি পদ্মবিলের ফুল ছিড়ে ফেসবুকে ভাইরাল যুবকরা পানিতে ডুবে গেছে মঠবাড়িয়ার নিম্নাঞ্চল নারী সেজে পুরুষের সঙ্গে যেভাবে প্রেম করেন ইমরান সোনারগাঁয়ের করোনা যোদ্ধারা প্রাণের ঝুঁকি নিয়েই ঝাঁপিয়েছেন মানবসেবায়  স্বামীকে হত্যা করে একই ঘরে প্রেমিককে নিয়ে রাতযাপন, প্রেমিক প্রেমিকা আটক নরসিংদীতে পাটের ভাল দাম হওয়ায় গাড়ী করে নিচ্ছেন নতুন পাট কৃষক বাড়ি থেকে জোর করে গরু নিয়ে যাওয়ার অভিযোগ ইউপি মেম্বারের বিরুদ্ধে হেলেনা জাহাঙ্গীরের বাসায় অভিযান চালাচ্ছে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন র‌্যাব
লকডাউনে সন্তানদের খাবার দিতে না পেরে বাবার

লকডাউনে সন্তানদের খাবার দিতে না পেরে বাবার আত্মহত্যা


ফটো-সংগৃহীত

মুন্সিগঞ্জ প্রতিধিদি: করোনার সংক্রমণরোধে সরকার কর্তৃক ঘোষিত কঠোর লকডাউনে কাজ পুরোপুরি বন্ধ হয়ে গেলে অভাবের কারণে পারিবারিক সমস্যা বেড়ে যায়। সেই সমস্যার জের ধরেই মুন্সিগঞ্জ সদরে এক দিনমজুর ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছেন।

রোববার (৪ জুলাই) দুপুর ২টার দিকে সদর উপজেলার পশ্চিম মুক্তারপুর এলাকায় নিজ বাড়ি থেকে তার মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।

নিহত ব্যক্তি দ্বীন ইসলাম বরিশাল জেলার কাউনিয়া এলাকার বাসিন্দা। তিনি মা, স্ত্রী ও দুই ছেলেমেয়ে নিয়ে মুক্তারপুর এলাকায় ভাড়া বাসায় থাকতেন।

নিহতের পরিবার ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, করোনার কারণে কাজ না থাকায় সংসার চালাতে হিমশিম খাচ্ছিলেন দ্বীন ইসলাম। এনিয়ে স্ত্রী শাহিদা বেগমের সঙ্গে তার কলহ চলছিল। রোববার সকালে ফের তারা ঝগড়ায় লিপ্ত হন। এসময় স্ত্রী শাহিদাকে ঘর থেকে বের করে দেন দ্বীন ইসলাম। পরে দরজা আটকিয়ে ঘরের আড়ার সঙ্গে উড়না পেঁচিয়ে আত্মহত্যা করেন তিনি। বিষয়টি দেখতে পেয়ে পুলিশকে খবর দিলে পরে তারা এসে মরদেহ উদ্ধার করে।

নিহতের মা জুলেখা বেগম বলেন, ‘আমাদের নুন আনতে পান্তা ফুরায়। লকডাউনে কাজ ছিল না। ওর মাইয়া চাইব একটা রুটি, এই পোলা চাইব ভাত, এটি নিয়ে সংসারে সমস্যা। কাজ নাই, পুলাপাইনের মুখে ভাত দিতে পারে না, তাই অভিমানে মরে গেছে।’

নিহতের স্ত্রী শাহিদা বেগম বলেন, ‘লকডাউনে আমার ঘরে বাজার-সদাই কিছু ছিল না। সংসারে অভাব। পুলাপাইনরে খাওয়াইতে-লওয়াইতে পারছিলাম না। সংসারে অভাব দেইখা মনে করছে পুলাপাইনরে খাওয়াইতে পারি না, বাইচা থাকাইকা কী করুম।

তিনি আরও বলেন, ‘এখন উনি (দ্বীন ইসলাম) মইরা গেছে, আমি কী করুম? লকডাউন খুললে তো একদিন কাজ করে আমাদের খাওয়াইতে পারত। এখন আমিতো তাও পারুম না।’

মুন্সিগঞ্জ সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবু বকর সিদ্দিক জানান, ময়নাতদন্তের জন্য মরদেহ মুন্সিগঞ্জ সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। তবে করোনায় তার কাজ না থাকার বিষয়টি জানা নেই।

দয়া করে নিউজটি লাইক করুন এবং শেয়ার করুন..
  •  
  •  
  •  
  •  
visitor counter
All rights reserved © 2021 দেশের গর্জন | Desher Garjan
Design & Developed BY Subrata Sutradhar
Translate »