শিরোনামঃ
সোনারগাঁয়ে পানি নিস্কাশনের যায়গায় ময়লার ভাগার, দেখার কেউ নেই ছাতকে উত্যেক্তকারিদের হামলায় নারী আহত: থানায় অভিযোগ শিবপুর উপজেলার বি.বি.এস ইটভাটার কাজকর্ম চালানো হচ্ছে শিশু শ্রমিক সোনারগাঁয়ে হেলথ এসিস্ট্যান্ট এসোসিয়েশনের চার দফা কর্মবিরতি পালন রিষাবাড়ীতে নদীতে ঝাপিয়ে পড়া ৩ জুয়াড়ির লাশ উদ্ধার, দায়িত্ব অবহেলায় ২ পুলিশ প্রত্যাহার, আটক ২ ঢাকা থেকে পায়রাবন্দর পর্যন্ত রেললাইন নিয়ে যাব: প্রধানমন্ত্রী প্রাইভেট ও সরকারি হাসপাতাল মিলেই করোনার দ্বিতীয় ঢেউ সামলানো হবে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী শাসন দীর্ঘায়িত করার ইচ্ছা সরকারের নেই: কাদের দেশরক্ষার জন্য নদীরক্ষা অপরিহার্য: তথ্যমন্ত্রী নরসিংদীতে আশিরনগর সিএনজি স্ট্যান্ডে স্টিকার ব্যবহার করে চাঁদা আদায়ের অভিযোগ
যশোরের মণিরামপুরে জমিজমা সংক্রান্ত ঘটনায় ছোট ভায়ের

যশোরের মণিরামপুরে জমিজমা সংক্রান্ত ঘটনায় ছোট ভায়ের হাতে বড় ভাই খুন


দেশের গর্জন ফটো

আব্দুর রহিম রানা, স্টাফ রিপোর্টার: যশোরের মণিরামপুরে পৈত্রিক জমি নিয়ে বিরোধের জের হিসেবে ছোট ভাইদের হাতে খুন হয়েছে বড় ভাই লাউড়ী কামিল মাদ্রাসার অবসরপ্রাপ্ত প্রভাষক আবদুস সাত্তার গোলদার(৬৮)। শুক্রবার বিকেলে এ ঘটনা ঘটে। পুলিশ নিহতের ভাইপো পারভেজকে আটক করেছে। নিহত সাত্তার গোলদার উপজেলার খানপুর ইউনিয়নের গোবিন্দপুর গ্রামের মৃত ইব্রাহিম গোলাদারের মেঝ ছেলে। স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে থেকে রাতেই পুলিশ নিহতের লাশ উদ্ধার করে। নিহতের ভাই মাদ্রাসার প্রভাষক জয়নাল আবেদীন জানান, পৈত্রিক জমি ভাগবাটোয়ারা নিয়ে শুক্রবার বিকেলে গোবিন্দপুর গ্রামের পৈত্রিক বাড়িতে ভাই-বোনদের উপস্থিতিতে বৈঠক শুরু হয়। এ সময় ভাগবাটোয়ারা নিয়ে ভাইদের মধ্যে কথাকাটাকাটি হয়। একপর্যায়ে সেজভাই আবদুল হামিদ, ছোটভাই স্কুল শিক্ষক রোকনুজ্জামান মিলে মেঝভাই লাউড়ী কামিল মাদ্রাসার অবসরপ্রাপ্ত প্রভাষক আবদুস সাত্তারকে কিলঘুষি মারে। অভিযোগ রয়েছে এ সময় তাদের সাথে যোগ দিয়ে আবদুল হামিদের ছেলে পারভেজ, ইসমাইল এবং সোয়েবও আবদুস সাত্তারকে মারতে থাকে। এ সময় অন্য ভাইসহ উপস্থিতিরা ঠেকাতে আসলে তাদের সাথেও ওদের হাতাহাতি হয়। একপর্যায়ে মেঝভাই আবদুস সাত্তার অসুস্থ্য হয়ে পড়েন। পরে তাকে উদ্ধারের পর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে জরুরী বিভাগের ডা: জুয়েল তাকে মৃত ঘোষনা করেন। হাসপাতালে পিতার লাশ সামনে নিয়ে নিহতের একমাত্র মেয়ে আসমা আকতার সুমি প্রলাপ করছিলেন আর বলছিলেন সবার সামনে খুনিরা তার পিতাকে নির্দয়ভাবে পিটিয়ে হত্যা করেছে। এ সময় তিনি পিতার হত্যাকারীদের ফাঁসির দাবি করেন। অবশ্য হত্যাকান্ডে জড়িত থাকার অভিযোগে পুলিশ গতকাল রাতেই আবদুল হামিদের ছেলে পারভেজকে(নিহতের ভাইপো) সামান্য আহত অবস্থায় আটকের পর উপজেলা স্থাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। সন্ধ্যারপর সহকারি পুলিশ সুপার (মনিরামপুর-সার্কেল) সোয়েব আহমেদ খান, ওসি(সার্বিক) রফিকুল ইসলাম, ওসি(তদন্ত) শিকদার মতিয়ার রহমান ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। এ রিপোর্ট লেখার সময় ওসি রফিকুল ইসলাম জানান, হত্যাকান্ডের ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছিল।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার এবং লাইক করুন..
visitor counter
All rights reserved © 2020 দেশের গর্জন | Desher Garjan
Design & Developed BY Subrata Sutradhar
Translate »