শিরোনামঃ
সোনারগাঁয়ে পানি নিস্কাশনের যায়গায় ময়লার ভাগার, দেখার কেউ নেই ছাতকে উত্যেক্তকারিদের হামলায় নারী আহত: থানায় অভিযোগ শিবপুর উপজেলার বি.বি.এস ইটভাটার কাজকর্ম চালানো হচ্ছে শিশু শ্রমিক সোনারগাঁয়ে হেলথ এসিস্ট্যান্ট এসোসিয়েশনের চার দফা কর্মবিরতি পালন রিষাবাড়ীতে নদীতে ঝাপিয়ে পড়া ৩ জুয়াড়ির লাশ উদ্ধার, দায়িত্ব অবহেলায় ২ পুলিশ প্রত্যাহার, আটক ২ ঢাকা থেকে পায়রাবন্দর পর্যন্ত রেললাইন নিয়ে যাব: প্রধানমন্ত্রী প্রাইভেট ও সরকারি হাসপাতাল মিলেই করোনার দ্বিতীয় ঢেউ সামলানো হবে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী শাসন দীর্ঘায়িত করার ইচ্ছা সরকারের নেই: কাদের দেশরক্ষার জন্য নদীরক্ষা অপরিহার্য: তথ্যমন্ত্রী নরসিংদীতে আশিরনগর সিএনজি স্ট্যান্ডে স্টিকার ব্যবহার করে চাঁদা আদায়ের অভিযোগ
মানিকগঞ্জে কোটি কোটি টাকার রাজস্ব ফাঁকি দিচ্ছে

মানিকগঞ্জে কোটি কোটি টাকার রাজস্ব ফাঁকি দিচ্ছে প্রশাসনের চোখের সামনে বিভিন্ন বিড়ি কোম্পানী


  নকল ছাপানো ব্র্যান্ডরোল ব্যবহার করে বিভিন্ন বিড়ি কোম্পানীর চলছে রমরমা ব্যবসা

মানিকগঞ্জ জেলা প্রতিনিধিঃ মানিকগঞ্জ জেলার অন্তর্গত বিভিন্ন  থানার হাটে/বাজারে শুল্ক ও. কর ফাঁকি দিয়ে নকল  পুনঃব্যবহৃত ও ছাপানো ব্র্যান্ডরোল ব্যবহার করে কোটি কোটি টাকার রাজস্ব ফাঁকি দিয়ে প্রশাসনের চোখের সামনে প্রকাশ্যে অবৈধ বিড়ির বাজারজাতকরন ও বিক্রি করে যাচ্ছে,বেশ কিছু অসাধু বিড়ি কোম্পানী। ২০১৮-২০১৯ অর্থ বছরে বাজেট পরবর্তী সময় হতে বর্তমানে। এর মধ্যে উল্লেখ যোগ্য হচ্ছে মিঠু বিড়ি , স্টার বিড়ি,  রাজ বিড়ি,  ডালিম বিড়ি, আফিজ বিড়ি ,মুকুট বিড়ি, মিষ্টি বিড়ি, মিরাজ বিড়ি প্রমুখ। সরকার স্বাস্থ্যখাতের ঝুকি এড়াতে ও তামাকজাত দ্রব্যকে নিরুৎসাহিত করতে বছর বছর এখাতের উপর বাড়তি করারোপ করে যাচেছ।২০১৮-২০১৯ অর্থবছরে বাজেটে বিড়ির মূল্যস্থর ১২% সম্পূরক শুল্ক ৫% অগ্রীম কর ১০%  বাড়িয়ে মোট শুল্ক বৃদ্ধি করে ২৪.২০%। বর্তমানে প্রতিহাজার বিড়িতে মোট শুল্ক দিতে হয় ৩১৩.৬০ টাকা। এছাড়া বিড়ির কাগজ  তামাক ফিল্টার পরিবহন ও বাজারজাতকরন খরচ দিয়ে কোনভাবেই ২৫ শলাকার এক প্যাকেট বিড়ি ১৪ টাকার নিচে বিক্রি করা সম্ভব নয়। যদি কেউ তা করে থাকে তাহলে ধরে  নিতে হবে সেটাই অবৈধ বিড়ি। অথচ সরকারের এই নিয়মনীতিকে বৃদ্ধাঙ্গুলী দেখিয়ে প্রশাসনের নাকের ডগায় এইসব অসাধু ব্যবসায়ীরা নকল ও ছাপানো ব্র্যান্ডরোল ব্যবহার করে নির্ধারিত মূল্যেরও প্রায় অর্ধেক দামে ৭/৮ টাকা দরে বাজারে বিড়ি বিক্রয় করছে। এতে একদিকে যেমন সরকার কোটি কোটি টাকার রাজস্ব হারাচ্ছে অন্যদিকে বৈধভাবে সরকারকে শুল্ক ও কর পরিশোধ করা কোম্পানী মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। এতে করে সরকারের মুলনীতি স্বাস্থ্যঝুকির কথা বিবেচনা করে ধূমপানকে নিরুসাহিত করার বদলে কম মূল্যে ও সস্তায় বিড়ি পেয়ে আরো বেশি করে সাধারণ মানুষ ধূমপানের প্রতি আকৃষ্ট হচ্ছে। মাঝখান থেকে লাভবান হচ্ছে এক শ্রেণীর অসাধু ব্যবসায়ী। ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে দেশের বৈধ ভাবে ব্যবসা করা বিড়ি কোম্পানী গুলো আর সরকার হারাচ্ছে কোটি কোটি  টাকার রাজস্ব। খোজ নিয়ে জানা গেছে স্থানীয় কাষ্টমস্ ও প্রশাসনের প্রত্যক্ষ মদদে তারা একাজ নির্বীঘেœ কওে হাতিয়ে নিচ্ছে কোটি কোটি টাকা বিষয়টি আমলে নিয়ে দ্রত এর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা না নিলে ক্ষতিগ্রস্ত হবে দেশের শ্রমঘন এই শিল্পটি  ধসে পড়বে দেশের রাজস্ব আহরণের বড় এ খাতটি  বাধাগ্রস্ত হবে দেশের উন্নয়নের অগ্রযাত্রা ভেঙ্গে পড়বে স্বাস্থ্যখাত  বাধাগ্রস্থ হবে সুশাষন মাথা চাড়া দিবে দেশের দূর্নীতিখাত। অতএব উপরোক্ত বিষয়টির গুরুত্বানুধাবন পরবর্তী বিষয়টির ব্যাপকতারোধে  যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহন ও এসব ব্যবসার সাথে জড়িতদের চিহ্নিত করে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া নিয়মিত বাজার মনিটরিং  ও ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে বাজাওে অভিযান পরিচালনার মাধ্যমে দোষীদেও শাস্তিরব্যবস্থা নিশ্চিত করলেই বন্ধ হবে এই অপতপরতা ঘুরে দাড়াবে দেশের রাজস্বখাত এই ব্যাপারে  উদ্দোগী ভুমিকা পালন করতে পারে স্থানীয় কাষ্টমস্ ভ্যাট এক্সাইজ ও রাজস্ব বিভাগের দায়িত্বরত কর্মকর্তারা।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার এবং লাইক করুন..
visitor counter
All rights reserved © 2020 দেশের গর্জন | Desher Garjan
Design & Developed BY Subrata Sutradhar
Translate »