শিরোনামঃ
নরসিংদীর বেলাবোতে সহপাঠীদের নির্যাতনে ৬ষ্ঠ শ্রেণির এক স্কুল ছাত্রের মৃত্যু ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলার স্বাস্থ্য সহকারীদের কর্মবিরতিতে টিকা কার্যক্রম ব্যাহত নরসিংদীতে শিবপুরে গ্রাম্য কবিরাজের গলাকাটা লাশ উদ্ধার ব্রাহ্মণবাড়িয়া কলাগাছের গোড়ায় পাওয়া শিশুটির মা শিক্ষিকা পারভীন নরসিংদীতে স্বাস্থ্য সহকারীদের অব্যাহত কর্মবিরতির কারণে টিকা না পেয়ে স্বাস্থ্যঝুঁকিতে শিশুরা নরসিংদীতে আশিরনগরের সিএসজি স্ট্যান্ডে চাঁদাবাজির সত্যতা কিছুটা স্বীকার করলেন নেতারা বিএনপি ক্ষমতায় যেতে চোরাগলি খুঁজছে: কাদের প্রতিবন্ধীদের আলাদাভাবে যত্ন নিবেন: ইকরামুল হক টিটু বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য শুধু প্রতিকৃতি নয় বাংলাদেশের প্রতিচ্ছবি আওয়ামী লীগ ও বিএনপি দেশের মানুষকে হতাশ করেছে: জিএম কাদের
বড় জয় পেলেন মার্কিন কংগ্রেসের প্রথম হিজাবধারী

বড় জয় পেলেন মার্কিন কংগ্রেসের প্রথম হিজাবধারী ইলহান ওমর


ফটো-সংগৃহীত

যুক্তরাষ্ট্রের ২০২০ সালে নির্বাচনে জয় ছিনিয়ে নিলেন ডেমোক্র্যাটিক প্রার্থী ইলহান ওমর। সোমালিয়া বংশোদ্ভূত ওই মুসলিম নারী খুব সহজেই রিপাবলিকান প্রার্থী লেসি জনসনকে বিপুল সংখ্যক ভোটে হারিয়ে জয়ের তালিকায় নিজের নাম লিখেছ ইলহান ওমর দ্বিতীয় মেয়াদে তার নির্বাচনী এলাকা মিনেসোটায় ৬৪ দশমিক ছয় শতাংশ ভোট পেয়েছেন। মিনেসোটায় ৯৭ শতাংশ ভোটার ভোট দিয়েছেন। যার মধ্যে রিপাবলিকান প্রার্থী লেসি জনসন এক লাখ এক হাজার ৪৪৩ ভোট পেয়ে পরাজিত হয়েছেন। আর সেখানে ইলহান ওমর দুই লাখ ৫২ হাজার ৮৯৯ ভোট পেয়ে জয়যুক্ত হয়েছেন। প্রতিদ্বন্দী লেসি জনসনের ভোটের হার মাত্র ২৫ দশমিক ৯ শতাংশ। ইলহান ওমর এর আগে ২০১৬ সালে মিনেসোটা রাজ্য সংসদের সদস্য নির্বাচিত হন। কে এই ইলহান ওমর ইলহান ওমর এসেছেন সোমালিয়া থেকে। শিশু বয়সে দীর্ঘ চার বছর কেনিয়ার একটি শরণার্থী শিবিরে ছিলেন সাহসী এই নারী। তাকে সাহসী বলা হচ্ছে এ কারণে যে, হিজাব পরার পক্ষে তর্কযুদ্ধেও তিনি জয়ী হয়েছেন। যুক্তরাষ্ট্রের কংগ্রেসের প্রথম হিজাব পরা সদস্যও তিনি। অথচ ওখানকার অনেক শাসকই তা না পরার পক্ষে যুক্তি দেখান। তিনি কৌশলে এসব যুক্তি খণ্ডন করেন। কংগ্রেসের একটি সভায় তার হিজাব পরার বিষয়ে অভিযোগকারী এক ধর্মীয় নেতাকে কৌশলে নিশ্চুপ করিয়ে দেন। ইলহান বলেন, আমি এখন একজন কংগ্রেস প্রতিনিধি। এ ব্যাপারে আমার সিদ্ধান্তই প্রতিষ্ঠিত হবে বলে আমি মনে করি। ইসলামী প্রজাতন্ত্রের রূপ পাক কংগ্রেস। বিরোধীরাও বলছেন, এখন ইসলামী প্রজাতন্ত্রের মত দেখা যাচ্ছে কংগ্রেসের অধিবেশনে। বলা যেতে পারে, প্রায় ১৮১ বছরের পুরনো গতানুগতিক ভাবধারাকে পাল্টে দিলেন তিনি। ইলহানের পক্ষের লোকেরাও এই আইনের ব্যাখ্যা চেয়ে দাবি করেছেন যে, ধর্মীয়ভাবে শিরাবরণ ব্যবহার করা উচিত হাউজ চেম্বারে। ইলহান ওমর এ সংক্রান্ত যে দাবি করেছেন তা অযৌক্তিক নয় মোটেই। এদিকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের পিউ রিসার্চ সেন্টার এক হিসাবে বলেছে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে মুসলমান বসবাসকারীর সংখ্যা প্রায় ৩.৪৫ মিলিয়ন। এ অবস্থায় সভা চলাকালে মাথায় হিজাব পরা যুক্তিহীন কোনো বিষয় নয়। এ ব্যাপারে ইলহান বলেন, ‘আমার মাথায় কেউ হিজাব পরিয়ে দেয়নি। আমি নিজেই তা পরেছি। এটা আমার ব্যাপার। তা আমি প্রতিষ্ঠা করার জন্যই কাজ করছি। একসময় তা দেখা যাবে সভার বাইরেও। কিছু ধর্মীয় নেতা যখন এ নিয়ে রীতিমতো বিলাপ করছিলেন, তখন প্রতিনিধি সভা ইলহানকে নির্বাচিত করে যুক্তি দেয় যে, এখন থেকে ইলহান মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মানুষের জন্য উন্নততর নীতি নির্ধারণ করবেন। সোমালিয়ায় গৃহযুদ্ধ চলাকালীন ১৯৯১ সালে তিনি পিতার সাথে কেনিয়ায় পালিয়ে যান। ইলহান বলেছেন, কিভাবে আমরা সোমালিয়ার রাজধানী মোগাদিসু থেকে মাঝরাতে অল্পের জন্য সেনাদের হাত থেকে পালাতে সক্ষম হই, তা বলাও কঠিন। বর্ণনা দেন, কিভাবে তিনি মৃতদেহ, ভাঙা দালান কোঠা ইত্যাদির ওপর দিয়ে পালিয়ে যান। তারা কেনিয়ার উটাঙ্গ শরণার্থী শিবিরে প্রায় চার বছর অবস্থান করেন। এই ক্যাম্পের বৈশিষ্ট্য ছিল অপর্যাপ্ত পয়োনিষ্কাশন ব্যবস্থা, রাতে শয়নের অস্থায়ী তাঁবু ইত্যাদি। তা হলো, শরণার্থী শিবিরটি ছিল এক দূরবর্তী অঞ্চলে। তারা শহরে চলাচলের অনুমতি পাননি। তার একমাত্র কাজ ছিল পানি আনা ও নিটবর্তী অঞ্চল থেকে জ্বালানি সংগ্রহ করা। শেষ পর্যন্ত ইলহানই ইউএস কংগ্রেসে একজন মুসলিম প্রতিনিধি নিযুক্ত হলেন। অনেকে বলেছেন, ইলহান হলেন এক তীব্র বহমান সংগ্রামী নারী। তিনি সবার জন্য স্বাস্থ্য, প্রতিরক্ষা, শিক্ষার্থীদের ঋণ মওকুফ ইত্যাদি বিষয়ে কার্যকর পদক্ষেপের কথা বলেন। সামর্থ্য অনুযায়ী গৃহায়ন সুবিধার প্রতিও গুরুত্ব দেন। কলেজের যেসব শিক্ষার্থীর পরিবারের আয় অনেক কম তাদের বিনা বেতনে অধ্যয়নের কথা বলেন। শ্রমিকদের শ্রমের মজুরি বাড়ানোর প্রতিও গুরুত্ব বাড়ান। ‘যেমন ভোগ করেছ তেমন মূল্য দাও’ এই নীতির বিরোধিতা করে তা সহজ করার প্রতিশ্রুতি দেন। ২০১৬ সালে ইলহান ওমর লেবার পার্টির ডেমোক্র্যাটিক ফার্মারের মেম্বার হিসেবে মিনোসোটা হাউজে প্রতিনিধি নিযুক্ত হন। প্রাথমিক জীবন তিনি অতিবাহিত করেন সোমালিয়ার রাজধানী মোগাদিসুতে। সাত সন্তানের মধ্যে তিনি সবচেয়ে ছোট। তার পিতা নূর মোহাম্মদ ওমর শিক্ষকদের প্রশিক্ষণ দিতেন। ইলহানের বয়স যখন প্রায় দুই বছর, তখন তার মা মারা যায়। পিতা এবং দাদার কাছে তিনি বড় হন। ১৯ বছর বয়সে ২০০০ সালে ইলহান মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিকত্ব লাভ করেন। ইলহান ওমরের জন্ম ১৯৮১ সালের ৪ অক্টোবর সোমালিয়ার মোগাদিসুতে। একসময় তিনি এডিসন হাইস্কুলে ভর্তি হন এবং ছাত্র সংগঠক ছিলেন। পরে নর্থ ডাকোটা স্টেট ইউনিভার্সিটিতে রাষ্ট্রবিজ্ঞান এবং আন্তর্জাতিক বিষয়ে ২০১১ সালে ব্যাচেলর ডিগ্রি লাভ করেন। হামফেরে স্কুল অব পাবলিক এফেয়ার্সে একজন পলিসি ফেলো ছিলেন তিনি। তিনি পেশাগত জীবনে প্রবেশ করেন তার সম্প্রদায়ের পুষ্টিশিক্ষা বিষয়ে। ২০০৬ থেকে ০৯ সাল পর্যন্ত বৃহত্তর মেনিপোলিস সেইন্ট পল এলাকায় এ দায়িত্ব পালন করেন। ২০১২ সালে কারি ডিজেজিক পুনর্নির্বাচনে অংশ নেন মিনোসোটা স্টেটস সিনেটের জন্য। ২০১২-১৩ পর্যন্ত মিনেসোটা ডিপার্টমেন্ট অব এডুকেশনে শিশুপুষ্টির কো-অর্ডিনেটর হিসেবে কাজ করেন। এই দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে ফেব্রুয়ারি ১৪ তে তিনি কিছু লোক দ্বারা আক্রান্ত হন। সেপ্টেম্বর ২০১৫তে ওম্যান অর্গানাইজেশন ওম্যান নেটওয়র্কে পরিচালক ছিলেন। সংস্থাটি পূর্ব আফ্রিকার নারীদের নগর বা নাগরিক বিষয় ও রাজনৈতিক নেতৃত্ব নিয়ে কাজ করে। ইলহানের পুরো নাম ইলহান আবদুল্লাহি ওমর।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার এবং লাইক করুন..
visitor counter
All rights reserved © 2020 দেশের গর্জন | Desher Garjan
Design & Developed BY Subrata Sutradhar
Translate »