শিরোনামঃ
ঝালকাঠিতে বাই-সাইকেল সেলাই মেশিন সহ ছাত্রী ও হতদরিদ্রদের মাঝে বিভিন্ন উপকরন বিতরন যশোর সদর উপজেলা নির্বাচনে ২ লাখ ৬৪ হাজার ভোটের ব্যবধানে নৌকা জয়ী কালীর বাজার উচ্চ বিদ্যালয়ের ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন এর উদ্বোধন সুনামগঞ্জ জেলার প্রথমবারের মতো ছাতকে ইভিএম পদ্ধতিতে ভোট গ্রহণ রূপগঞ্জের দাউদপুর ইউপি নির্বাচনে ২ ন্ং ওয়ার্ডে প্রতিপক্ষ ইউপি সদস্য পদপ্রার্থী’র সমর্থকের উপর হামলা আহত-৫ দলীয় সরকারের অধীনে এদেশে কখনই সুষ্ঠু নির্বাচন সম্ভব নয়: মির্জা ফখরুল  প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিলে ইবি কর্মকর্তা সমিতির ৫ লাখ টাকা প্রদান কসবায় ৩০ কেজি ভারতীয় গাঁজা উদ্ধার গ্রেফতার-২ রাঙ্গামাটিতে পাহাড়ি ছাত্র পরিষদ নেতাকে গুলি করে হত্যা আগাম জামিন নিক্সন চৌধুরী এমপির
ফুলপুর সরকারি কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষের আর্থিক দুর্নীতির

ফুলপুর সরকারি কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষের আর্থিক দুর্নীতির অভিযোগে কলেজে দুদক


তপু , (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধিঃ ময়মনসিংহের ফুলপুর উপজেলার ফুলপুর সরকারি কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ জনাব মোঃ জসিম উদ্দিন শেখ এর আর্থিক দুর্নীতি স্বেচ্ছাচারিতা ও নৈতিক স্খলনের অভিযোগে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) তদন্তের জন্য আসেন এবং প্রাথমিকভাবে তদন্ত করে কিছু অনিয়ম পান এবং আরো তদন্ত হবে বলেও জানিয়েছেন। জানা যায়, ঐতিহ্যবাহী এ কলেজটি ১৯৬৯সানে প্রতিষ্ঠার পর থেকে অত্যন্ত সুনামের সাথে পরিচালিত হয়ে আসছে। এই কলেজ প্রতিষ্ঠার অন্যতম সংগঠক ভাষা সৈনিক মরহুম এম শামসুল হক এমপির হাতে গড়া এ প্রতিষ্ঠানটি তারই সুযোগ্য সন্তান মাননীয় সমাজকল্যাণ প্রতিমন্ত্রী শরীফ আহমেদ এমপি সরকারিকরণ করেন। বর্তমান ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ নিয়োগপ্রাপ্ত হবার পর থেকে নানামুখী মানসিক নির্যাতনের শিকার হয়ে সাবেক অধ্যক্ষ জনাব হুমায়ুন কবির ভূঁইয়া চাকরি ছেড়ে যেতে বাধ্য হন। বর্তমানে তিনি বাকরুদ্ধ অবস্থায় দেশের বাহিরে চিকিৎসাদিন আছেন। উনার অবসর ভাতার টাকা পেতে বর্তমান ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ বাধাগ্রস্থ করছেন যা মানবতা বিরুধী। কলেজের যাবতীয় আয়ের টাকা ব্যাংকে জমা হওয়ার আগেই ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ সম্পূর্ণ বেআইনিভাবে শত শত বার আদায়কৃত অর্থ ব্যাংকে জমা না দিয়ে অফিস হতে নগদ গ্রহণ করে ইচ্ছামত বিল ভাউচার তৈরি করে আত্মসাৎ করে চলেছেন। একক নাম ও স্বাক্ষর প্রতিষ্ঠান কোন ব্যাংক হিসাব পরিচালনার কথা না থাকলেও তিনি একক নামে স্থানীয় সোনালী ব্যাংক থেকে লক্ষ লক্ষ টাকা লেনদেন করেছেন। কলেজের অভ্যন্তরীণ অর্থ কমিটির সদস্যদের পাশকাটিয়ে তার পছন্দের একজন শিক্ষকের সুপারিশ নিয়ে প্রায় কোটি টাকার বিল ভাউচার পাস করেন। সম্পূর্ণ বেআইনিভাবে তিনি মাসে ৫ হাজার টাকা চার্জ ভাতা গ্রহন করে। প্রতিষ্ঠান প্রধানের ওভার টাইম বিল নেয়ার বিধান নেই কিন্তু তিনি বিভিন্ন সময়ে লক্ষ লক্ষ টাকা ওভার টাইমের বিল ভাউচার করেন। কলেজের নিজস্ব আয় বছরে প্রায় কোটি টাকা অথচ শিক্ষকদের বসার মতো প্রয়োজনীয় চেয়ার নেই। বছরে কোটি কোটি টাকা আয় সত্বেও দুনীতির কারণে প্রত্যেক শিক্ষকদের কলেজের বেতন ভাতা বাবদ গড়ে ৩-৫লক্ষ টাকা পাওনা রয়েছে। গ্রীণ ফুলপুর গড়ার লক্ষ্যে ইউএনও মহোদয়ের দেওয়া চারা গাছ কলেজ প্রাঙ্গণে লাগানোর খরচ হয় ৩হাজার টাকা কিন্তু তিনি মিথ্যা ভাউচারের মাধ্যমে ৩০হাজার টাকার বিল তৈরি করেন। যা ইউএনও আপত্তি জানান। নিজেকে ডক্টরেট ডিগ্রীধারী দাবী করলে প্রাক্তন ইউএনও জনাব রাশেদ হোসেন চৌধুরী তার ডিগ্রীর সনদ দেখাতে বললে তিনি দেখাতে ব্যর্থ হন । উপজেলা সরকারী কোয়ার্টারে দীর্ঘ ১৫ বছর থাকার পর ইউএনও মহোদয় বাসা ভাড়া চাইলে তিনি উনার বিরুদ্ধে মামলা করেন । কলেজে তিনি পাই প্রতিদিনি ১২টা/১টায় উপস্থিত হতেন। তার স্ত্রী লুৎফুন নাহার কলেজের লাইব্রেরীয়ান হয়ে বিগত ১ বছরেও লাইব্রেরীটি ১ দিনের জন্যও খোলেন নি। তার সন্তানগণ প্রশাসন ও সেনাবাহিনীতে থাকায় তিনি নিজেকে প্রশাসনের বাবা বলে দাবী করেন। আরও বলেন তার বিরুদ্ধে শত অভিযোগ করলেও লাভ হবেনা। কলেজের সিনিয়র শিক্ষকরা এইসব অন্যায়ের প্রতিবাদ করলে তিনি ৭জন সিনিয়র শিক্ষকের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা করেন এবং এই ঘটনার একাধিক তদন্তের পরে আদালত মামলাটি খারিজ করে দেন। এবং ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ জসিম উদ্দিন শেখের বিরুদ্ধে গত ২০১৮ ইং সনে কলেজের সহকারী অধ্যাপক আব্দুল হামিদ কলেজের ফান্ড সহ বিভিন্ন অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ এনে ১ টি মামলা দায়ের করেন। মামলা নং ০৯/২০১৮,। কলেজের শিক্ষকগণ জানায় , উপরোক্ত অভিযোগের উপর ৩৪জন শিক্ষকের সাক্ষরে উপজেলা নির্বাহী অফিসার, জেলা প্রশাসক, বিভাগীয় কমিশনার ও শিক্ষা মন্ত্রনালয়ের সচিব বরাবর অভিযোগ পত্র দাখিল করা হয়েছে। আরোও জানান, এ অভিযোগের উপর ভিত্তিকরে গত ৩১শে অক্টোবর রোজ বৃহস্পতিবার ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষকে জেলা দুদক অফিসে তলব করেন। এ বিষয়ের উপর গতকাল ৩ নভেম্বর রোজ রোববার দুপুরে দুর্নীতি দমন কমিশনারের উপসহকারী পরিচালক জনাব এনামুল হক প্রাথমিক তদন্ত করেন। এসময় সাংবাদিক তপু রায়হান ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষের অফিসে তদন্ত চলাকালিন অবস্থায় সকলের সামনে ভিতরে প্রবেশ করে পরিচয় দিলে ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ জসিম উদ্দিন শেখ বলেন আপনি পরে আসেন এখন চলে জান। পরে তদন্ত শেষে দুদকের উপসহকারী পরিচালক সাংবাদিক তপুকে জানান প্রাথমিক ভাবে তদন্ত হয়েছে ও কিছু অনিয়ম পাওয়া গেছে আরোও গভীর ভাবে তদন্ত করা হবে।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার এবং লাইক করুন..
visitor counter
All rights reserved © 2020 দেশের গর্জন | Desher Garjan
Design & Developed BY Subrata Sutradhar
Translate »