শিরোনামঃ
ছাতকে ডাকাতির প্রস্তুতিকালে পিকাপসহ ৭ ডাকাত আটক  নরসিংদীতে জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে সুগন্ধিযুক্ত কলম্বো জাতের লেবুর আবাদ ঠাকুরগাঁওয়ে আমন ধানে পাতা ব্লাস্ট ও কারেন্ট পোকার উপদ্রবে দিশেহারা কৃষক নরসিংদীতে টাকার বিনিময়ে ঢাকা-সিলেট মহাসড়কে অবাধে চলছে ফিটনেসবিহীন যানবাহন সোনারগাঁ পৌরসভার মেয়র প্রার্থী রাব্বির পূজা মন্ডপ পরিদর্শন সোনারগাঁয়ের সাংবাদিক সুজন এর মামা রেজাউল ইন্তেকাল দর্শনা থানা পুলিশের অভিযানে ৪ জন ভুয়া পুলিশ আটক ডুলাহাজারা ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে চা-বাগান ৩ নং ওয়ার্ডের মেম্বার প্রার্থী: ছাদেকুল আশুলিয়ায় জমি দখলের চেষ্টার অভিযোগে থানায় অভিযোগ পটিয়ায় কর্ভাডভ্যানের ধাক্কায় মোটর সাইকেল আরোহী নিহত
নিষেধ অমান্য করে বহালতবিয়তে সাঁথিয়ায় পানি নিষ্কাশন

নিষেধ অমান্য করে বহালতবিয়তে সাঁথিয়ায় পানি নিষ্কাশন ক্যানালের সুতি জালের বাঁধ


ফারুক হোসেন,পাবনা প্রতিনিধিঃ গত ৩০ অক্টোবর উপজেলা উন্নয়ন সভায় পানি নিষ্কাশন ক্যানালের অবৈধ সুতি জালের বাধ নিয়ে আলোচনা হয়েছে। গেল সপ্তাহে উপজেলা কৃষি অফিসার সঞ্জিব কুমার গোস্বামী কৃষক প্রতিনিধিসহ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার নিকট মৌখিক অভিযোগ দিয়েছেন। অভিযোগ পেয়ে তিনি তাৎক্ষনিক সংশ্লিষ্ট ইউপি চেয়ারম্যানদের স্থানীয়ভাবে এটাকে অপসারণ করার ব্যপারে নির্দেশ দিয়েছেন। সুতিজালের বাধ না দেওয়ার জন্য পানি উন্নয়ন বোর্ড কর্তৃক মাইকিং করা সত্তেও পাবনার সাঁথিয়া-বেড়া পানি উন্নয়ন বোর্ডের কাগেশ্বরী-ডি-২ ক্যানাল “ কৈটোলা পাম্প হাউজ হতে মুক্তার ধর ” পর্যন্ত প্রায় ৪০ কিলোমিটার ক্যানালে প্রায় ৪-৫টি স্থানে মাছ ধরার জন্য সুতিজালের বাধ দিয়ে পানি প্রবাহে বাধা সৃষ্টি করে বহালতবিয়তে মাছ শিকার করছে এলাকার কতিপয় মৎস্য শিকারিরা। ফলে হাজার হাজার বিঘা জমি অনাবাদী থাকার সম্ভবনা রয়েছে। এদিকে কৃষকের ধান এখনও পানির মধ্যে থাকায় ক্ষোভে ফুসে উঠছে তারা। জানা যায় কৈটোলা পাম্প হাউজ হতে মুক্তর ধর পর্যন্ত প্রায় ৪০ কিলোমিটার পানি উন্নয়ন বোর্ডের পানি নিস্কাশনের ক্যানাল রয়েছে। এ ক্যানাল দিয়ে বর্ষা শেষে পানি দ্রুত নিস্কাশিত হয়। প্রতি বছরের ন্যায় এবারও ক্যানালে লক্ষ লক্ষ টাকার মাছ ধরার জন্য প্রায় ৪/৫ টি স্থানে সুতিজাল দিয়ে বাধ দেয়া হয়েছে। এ কারণে টেংড়াগাড়ী বিল,মুক্তরের বিল,সোনাই বিল,কাটিয়াদহের বিল,গজারিয়া বিল, ঘুঘুদহর বিলসহ এখনও অনেক বিলে পানি থৈথৈ করছে।
এসব সুতিজাল, বাঁশ, তালাই, পলিথিন,নেট, ইত্যাদি ব্যবহার করে এমনভাবে সুতিজাল (মাছ ধরার যন্ত্র) তৈরী করা হয় যে তাতে পানি প্রবাহের গতি কমে যায়। ফলে এখনও পানির মধ্যে রয়েছে কৃষকের ধান। এসব বিল থেকে দ্রুত পানি নিস্কাশন না হওয়ায় সাঁথিয়া বেড়ার প্রায় ১০/১২টি বিলের লক্ষ লক্ষ টাকার ধান পঁচে নষ্ট হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। এদিকে বিলের পানি যথাসময়ে নিস্কাশন না হলে কৃষকের বীজতলা তৈরি , পেয়াজের দানা, রসুন, ধানের চারা, শরিষা, মরিচসহ রবি শস্য বোপণ করতে না পারলে কৃষকরা মারাত্মক ক্ষতির সম্মুখিন হবে। উপজেলার বিভিন্ন বিল এলাকায় সরজমিন ঘুরে দেখা যায়,শামুকজানী বাজারের পাশে, দত্তপাড়া, বড়গ্রাম, টেংড়াগাড়ীর বিল, তালপট্টি ক্যানেলসহ বেশ কয়েকটি স্থানে সুতিজালের বাধ দেওয়ায় জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হচ্ছে। এমনও জায়গা আছে পর পর দুইটা সুতিজালের বাধ। ওই সব সুতিজালের বাধ দেয়া ব্যক্তিদের কাছে জিজ্ঞাসা করলে বলেন, স্থানীয় প্রশাসন ও ক্ষমতাসীন নেতাদের ম্যানেজ করে সুতি দিচ্ছি। সুতি দেওয়ায় ফলে দ্রুত পানি নিস্কাশন না হওয়ায় রবি শস্য বপণের মারাত্মক ব্যঘাত ঘটছে বলে শামুকজানি, ভবানীপুর,ঘুঘুদহ গ্রামের মোজাম,চাঁদ আলী,মন্জু এ সংবাদদাতাকে জানান, পানি দ্রুত নিস্কাসন না হওয়ায় আমরা বীজ তলা দিতে পারছি না। ঘুঘুদহ গ্রামের কাউছার,মজনু বলেন, আমাদের ধান এখনও পানির মধ্যে। ধান পেকে ধান গাছ থেকে আবার গাছ বেড় হচ্ছে কিন্তু পানি নামছে না। কবে ধান কাটবো আর কবেই বা রবি শস্য বুনবো।
উপজেলা কৃষি অফিসার সঞ্জিব কুমার গোস্বামী বলেন, গত ৩০ অক্টোবর উপজেলা উন্নয়ন সভায় বিষয়টি নিয়ে আলোচনা হয়েছে। কৃষক প্রতিনিধিসহ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার নিকট মৌখিক অভিযোগ দিয়েছেন। তিনি তাৎক্ষনিক সংশ্লিষ্ট ইউপিচেয়ারম্যানদের স্থানীয়ভাবে এটাকে অপসারণ করার ব্যপারে নির্দেশ দিয়েছেন। এতে যদি অপসারণ না হয় তবে এদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে জানিয়েছেন তিনি।
এ ব্যাপারে পানি উন্নয়ন বোর্ডের সাঁথিয়া-বেড়া অফিসের নির্বাহী প্রকৌশলী আব্দুল হামিদ বলেন, সুতিজালের বাধ দিয়ে মাছ ধরা সম্পুর্ন অবৈধ, আমরা মাইকিং করে দিয়েছি যাতে কেউ সুতিজালের বাধ দিয়ে জলাবদ্ধতা তৈরি না করতে পারে। যত দ্রুত সম্ভব সুতি জালের বাধ অপসারণ করার জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের প্রতি জোর দাবী জানান এলাকাবাসী। সোমবার (২৫ নভেম্বর) তালপট্টি সুতিজালের ব্যাপারে জানতে চাইলে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এস এম জামাল আহমেদ বলেন,আমি ২/৩ দিন আগে এসিল্যান্ডকে পাঠিয়েছিলাম সুতিজাল কাটার জন্য তালপট্টি গিয়ে সুতিজাল পায়নি।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার এবং লাইক করুন..
visitor counter
All rights reserved © 2020 দেশের গর্জন | Desher Garjan
Design & Developed BY Subrata Sutradhar
Translate »