নরসিংদীতে রায়পুরায় গাছ কাটতে বাঁধা দেয়ায় পিটিয়ে

নরসিংদীতে রায়পুরায় গাছ কাটতে বাঁধা দেয়ায় পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ


ফটো-সাইফুল ইসলাম রুদ্র

সাইফুল ইসলাম রুদ্র, নরসিংদী জেলা প্রতিনিধি: নরসিংদীর রায়পুরায় বাড়ির সীমানা সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে প্রতিপক্ষের হামলায় শহীদ মিয়া (৬০) নামের এক ব্যক্তির মৃত্যু হয়েছে। শনিবার (২০ ফেব্রয়ারি) দুপুর ২টার দিকে উপজেলার উত্তর বাখরনগর ইউনিয়নের লোচনপুর এলাকায় এই হত্যাকান্ডের ঘটনা ঘটে।

নিহত শহীদ মিয়া রায়পুরা উপজেলার উত্তর বাখরনগর ইউনিয়নের লোচনপুর গ্রামের মৃত আবদুল বারিকের ছেলে।

নিহতের ছোট মেয়ে ও ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী জেসমিন আক্তার জানান, আজ দুপুরে তাদের বাড়ির একটি গাছ কয়েকজন প্রতিবেশি মিলে কেটে নিচ্ছিল। যে গাছটি কাটা হচ্ছিল তা নিয়ে প্রতিবেশিদের বিরোধ চলছিল। এ নিয়ে স্থানীয়ভাবে বেশ কয়েকবার শালিস বৈঠকও হয়েছে।

আজ কাটার সময় শহীদ মিয়া তাদের বাধা দেয়। এ সময় গাছ কাটার দা নিয়ে শহীদ মিয়াকে কোপানোর হুমকি দেন তারা। একপর্যায়ে আওয়াল, খালেদ, বিজয়, মুন্নু, রাকিব, কেরল ও সামি মিলে শহীদ মিয়াকে ঘিরে ধরে কিল-ঘুষি মারতে থাকেন। এতে তিনি মাটিতে লুটিয়ে পড়লে তারা পালিয়ে যান।

উপস্থিত লোকজন ও স্বজনরা আহত অবস্থায় শহীদ মিয়াকে উদ্ধার করে স্থানীয় একটি বেসরকারী হাসপাতালে নিয়ে যায়। ওই হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের পরামর্শে তাকে নিয়ে যাওয়া হয় রায়পুরা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে। পরে সেখানকার জরুরি বিভাগের কর্তব্যরত চিকিৎসক বিকাল সাড়ে ৩টার দিকে তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

রায়পুরা উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা আবু সাইদ মো. ফারক জানান, শহীদ মিয়াকে তার স্বজনরা বেলা ২টা ৩০ মিনিটে আমাদের হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়। ওই সময় চিকিৎসক তার পালস খুঁজে পাচ্ছিলেন না। পরে ইসিজি করার পর আমরা তার মৃত্যু সম্পর্কে নিশ্চিত হই। তাকে মৃত অবস্থায়ই আমাদের হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়েছিল।

রায়পুরা থানার উপপরিদর্শক দেবদুলাল দে জানান, সীমানা সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরেই এই হত্যাকারে ঘটনা ঘটেছে। হত্যাকারে খবর পেয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে নিহতের লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। লাশের ময়না তদন্তের জন্য নরসিংদী সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হচ্ছে।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার এবং লাইক করুন..
visitor counter
All rights reserved © 2021 দেশের গর্জন | Desher Garjan
Design & Developed BY Subrata Sutradhar
Translate »