শিরোনামঃ
আওয়ামী লীগের বহিষ্কৃত নেত্রী হেলেনা আটক বাংলা চলচ্চিত্রের কিংবদন্তি ববিতার আজ শুভ জন্মদি পদ্মবিলের ফুল ছিড়ে ফেসবুকে ভাইরাল যুবকরা পানিতে ডুবে গেছে মঠবাড়িয়ার নিম্নাঞ্চল নারী সেজে পুরুষের সঙ্গে যেভাবে প্রেম করেন ইমরান সোনারগাঁয়ের করোনা যোদ্ধারা প্রাণের ঝুঁকি নিয়েই ঝাঁপিয়েছেন মানবসেবায়  স্বামীকে হত্যা করে একই ঘরে প্রেমিককে নিয়ে রাতযাপন, প্রেমিক প্রেমিকা আটক নরসিংদীতে পাটের ভাল দাম হওয়ায় গাড়ী করে নিচ্ছেন নতুন পাট কৃষক বাড়ি থেকে জোর করে গরু নিয়ে যাওয়ার অভিযোগ ইউপি মেম্বারের বিরুদ্ধে হেলেনা জাহাঙ্গীরের বাসায় অভিযান চালাচ্ছে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন র‌্যাব
দেশের তৃতীয় সাফারি পার্ক হচ্ছে

দেশের তৃতীয় সাফারি পার্ক হচ্ছে


ফটো-সংগৃহীত

দেশের গর্জন প্রতিনিধি, জুড়ী: কক্সবাজারের ডুলাহাজারা ও গাজীপুরের পর মৌলভীবাজারের জুড়ী উপজে’লার লা’ঠিটিলায় দেশের তৃতীয় সাফারি পার্ক স্থাপনের উদ্যোগ আরেক ধাপ এগিয়েছে।

সেখানে সাফারি পার্ক স্থাপনের সম্ভাব্যতা যাচাই প্রতিবেদন সোমবার পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয়ের সবুজ সংকেত পেয়েছে বলে মন্ত্রণালয়ের এক সংবাদ বি’জ্ঞপ্তিতে জানানো হয়।

লা’ঠিটিলায় ৫ হাজার ৬৩১ একর বনভূমির জায়গা জুড়ে এই সংরক্ষিত বনের নাম হবে ‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব সাফারি পার্ক’।

বন অধিদপ্তরের প্রধান বন সংরক্ষক মো. আমীর হোসেন চৌধুরীর সভাপতিত্বে এক ভা’র্চুয়াল সভায় সম্ভাব্যতা প্রতিবেদনে প্রয়োজনীয় সংশোধন করে তা অনুমোদন করা হয়।

সভায় উপস্থিত পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন বিষয়ক মন্ত্রী মো. শাহাব উদ্দিন বলেন, সম্ভাব্যতা যাচাই প্রতিবেদন অনুযায়ী অন্য এলাকার চাইতে লা’ঠিটিলায় সাফারি পার্ক স্থাপন হবে ‘সুবিধাজনক ও বাস্তবভিত্তিক’।

“এলাকার মানুষের ঐকমত্যের ভিত্তিতেই জুড়ী উপজে’লার লা’ঠিটিলায় এ সাফারি পার্ক প্রতিষ্ঠা করা হচ্ছে। এখানে সাফারি পার্ক স্থাপিত হলে বনভূমি অ’বৈধ দখল হতে রক্ষা পাবে।”

সাফারি পার্ক স্থাপনের মাধ্যমে ওই এলাকার জীববৈচিত্র্য সংরক্ষণ এবং পরিবেশের মানোন্নয়নের ব্যবস্থা নেওয়া হবে জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, “দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে আসা পর্যট’করা এ সাফারি পার্কে এসে বিভিন্ন ধরনের দেশি-বিদেশি প্রা’ণীর সাথে পরিচিত হতে পারবেন।”

মৌলভীবাজার জে’লা শহর হতে ৬০ কিলোমিটার উত্তর-পূর্বে, মাধবকুণ্ড জলপ্রপাত থেকে ২০ কিলোমিটার দক্ষিণে এবং লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যানের ৫০ কিলোমিটার উত্তরে এই বনাঞ্চলে ২০৯ প্রজাতির প্রা’ণী এবং ৬০৩ ধরনের উদ্ভিদ প্রজাতি রয়েছে।

মন্ত্রী জানান, এ বনভূমির ভেতরে ‘অ’বৈধভাবে’ বসবাস করা পরিবারগুলোর মধ্যে ৫৮টি পরিবারকে ইতোমধ্যে পুনর্বাসনের ব্যবস্থা করা হয়েছে। বাকি পরিবারগুলোকে রেখেই ইকোভিলেজ প্রতিষ্ঠা করা হবে।

পুনর্বাসন কার্যক্রমে ‘সর্বোচ্চ গুরুত্ব’ দিয়ে সাফারি পার্ক স্থাপনের কাজ দ্রুত বাস্তবায়নের জন্য সংশ্লিষ্টদের নির্দেশ দেন মন্ত্রী।

অন্যদের মধ্যে পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. মোস্তফা কা’মাল, অ’তিরিক্ত সচিব (উন্নয়ন) আহম’দ শামীম আল রাজী, মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মক’র্তা এবং মৌলভীবাজার জে’লা প্রশাসন, জুড়ী উপজে’লা পরিষদের প্রতিনিধিরা সভায় অংশ নেন।

দয়া করে নিউজটি লাইক করুন এবং শেয়ার করুন..
  •  
  •  
  •  
  •  
visitor counter
All rights reserved © 2021 দেশের গর্জন | Desher Garjan
Design & Developed BY Subrata Sutradhar
Translate »