তারাকান্দায় পিডিবি’র সেচ লাইনে বিদ্যুতের ভূতুড়ে বিলে

তারাকান্দায় পিডিবি’র সেচ লাইনে বিদ্যুতের ভূতুড়ে বিলে দিশেহারা কৃষক


ফটো-তপু রায়হান রাব্বি

ময়মনসিংহ প্রতিনিধিঃ ময়মনসিংহের তারাকান্দা উপজেলার ৮ নং কামারিয়া ও ১০ নং বিসকা ইউনিয়নে বিদ্যুতের অতিরিক্ত তথা ভূতুড়ে বিল নিয়ে গ্রাহকদের মাঝে চরম ক্ষোভ বিরাজ করছে। জানাগেছে, উপজেলার দু’টি ইউনিয়নের মধ্যে কয়েকটি গ্রামের বেশ কিছু কৃষকরা সেচের অতিরিক্ত বিদ্যুৎ বিল করায় দিশেহারা হয়ে পড়েছে।

 

কামারিয়া ইউনিয়নের মোজাহারদী গ্রামের মোঃ আজহারুল ইসলাম জানান,তিনি ২০১৯ ইং সালের নভেম্বর মাসের শেষের দিকে একটি নতুন সেচ লাইনের জন্য মিটার স্হাপন করেন।বোরো মৌসুম শেষে মিটারে রিডিং দেখা গিয়েছিল ১৭০০ ইউনিট কিন্তু বিলের কাগজে ২২০০ ইউনিট করে বিল করা হয়েছিল ১৩ হাজার ১৪ টাকা।

 

এই গড় বিলের কারনে অভিযোগ নিয়ে অফিসে গেলে অফিস কর্মকর্তা বিল হিসেব করে ১১ হাজার টাকা করে দেন তিনিও তা পরিশোধ করেন কিন্তু পরবর্তী অফ মৌসুমে সেচ লাইন বন্ধ থাকার পরও ৩১ শে ডিসেম্বরে মিটার রিডিং ৬ হাজার ৪ শত দেখিয়ে বিল আসে ২০ হাজার ৮ শত ২২ টাকা।

 

এতে দেখা যায় অতিরিক্ত মিটার রিডিং ৩৩৭৭ ইউনিট।এমন ভূতুড়ে বিলে আরো দিশেহারা অবস্হায় রয়েছেন আলহাজ্ব নাজিম উদ্দিন মোজাহারদী মিটার নং-৭৭৩৮৫৬ রিডিং ৪০৪১ বিল আসছে ২৩৫৩৩।

 

বিসকা ইউনিয়নের মোঃ শরাফ উদ্দিন গ্রাম দয়ারামপুর মিটার নং-৩৯২১২২ বর্তমান মিটার রিডিং ২২৬৬ বিল আসছে ৬ হাজার ৪ শত ৭৮ টাকা।সাজ্জাদ আলী মোজাহারদী মিটার নং-১২২৬৮৫ মিটার রিডিং ২৯৯২ বিল আসছে ২৫ হাজার ৩ শত ৪৯ টাকা।

 

মতিউর রহমান গ্রাম মোজাহারদী মিটার নং-১২২০১১ বর্তমান মিটার রিডিং ৭৩৩ বিল করা হয়েছে ১০ হাজার ৪ শত ৪৯ টাকা।ইফতিখার উদ্দিন মোজাহারদী মিটার নং-১২২০১৫ বর্তমান রিডিং নং-১৭৩২ বিল আসে ১৪ হাজার ৩ শত ১৮ টাকা।

 

মফিজ উদ্দিন ফকির দয়ারামপুর মিটার নং-৪০২৩১১ চলমান মিটার রিডিং ২২৩৪ বিল আসছে ২৪ হাজার ৮ শত ৭৭ টাকা।মোহাম্মদ আলী মোজাহারদী মিটার নং-১২২০৯২ মিটার রিডিং চলমান ২২৯১ বিল আসছে ১৩ হাজার ২ শত ৫৪ টাকা মাত্র।

 

উক্ত বিলে দেখা যাচ্ছে প্রতি কৃষকের সেচ মিটার অফিসের নিয়মে বন্ধ থাকার পরও নতুন করে বিল করা হচ্ছে কিন্তু কেন এমন অবৈধ ভূতুড়ে বিল আমাদের নামে করা হচ্ছে সবার প্রশ্ন একটাই।

 

এ বিষয় নিয়ে উপজেলার দু’টি ইউনিয়নের বোরো মৌসুমে সেচ লাইন চালু কৃষকেরা কঠিন বেকায়দায় পড়ে সবাই মিলে নির্বাহী প্রকৌশলী বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড পিডিবি বিক্রয় ও বিতরন বিভাগ(৩) (বিউবো) শম্ভূগন্জ, সদর,ময়মনসিংহ বরাবরে অভিযোগ দাখিল করেছেন সুষ্ঠু সমাধানের লক্ষ্যে।

 

এসব এলাকা সরেজমিনে ঘুরে জানাযায়-প্রতিটা মিটার গ্রাহক চরম বিপাকে দিনাতিপাত করছে এক হইল অতিরিক্ত বিল এবং অন্যত্র তারিখ মোতাবেক বিল পরিশোধ না করলে মামলার ভয়।

 

অভিযোগকারীরা এলাকার অতি সাধারন কৃষক।তারা দিনে রাতে পরিশ্রম করে একটি মিটার বসিয়ে পানি দিয়ে বোরো মৌসুমে কিছু জমির ফসল উৎপাদন করার আশা বুকে নিয়ে কাজ করলেও এমন ভূতুড়ে বিলের কারনে সবাই দিশেহারা।

 

তারা বলেন মাঠে কোন মিটার রিডার’রা না এসে অফিসে বসেই কেবল মিটার বহির্ভূত বিল করে যাচ্ছেন।তাদের এমন ভূতুড়ে বিল করার প্রতি সবাই নিন্দা জানান।এবিষয়ে শম্ভূগন্জ অফিসের বিদ্যুৎ বিতরন বিভাগের একজন সহকারী পরিচালকের সাথে কথা বললে তিনি বলেল হ্যা এরকম কিছু গ্রাহকের কিছু সমস্যা হয়েছে তবে অফিসে আসলে সমাধান করে দেব।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার এবং লাইক করুন..
visitor counter
All rights reserved © 2021 দেশের গর্জন | Desher Garjan
Design & Developed BY Subrata Sutradhar
Translate »