শিরোনামঃ
দিনাজপুর শিক্ষা বোর্ডের সাবেক চেয়ারম্যান প্রফেসর আহমেদ হোসেন আর নেই ফুলপুরে মাস্ক না পড়ায় ভ্রাম্যমাণ আদালতের জরিমানা সোনারগাঁওয়ে পৌরসভার মেয়র প্রার্থী ঝরার নির্বাচনী প্রচারনা ও লিফলেট বিতরণ গণমাধ্যমকর্মীরা করোনাকালের নির্ভীক যোদ্ধা: তথ্যমন্ত্রী মূর্তি ও ভাস্কর্যের বিরোধ সৃষ্টি ষড়যন্ত্রের অংশ: এম এ আউয়াল মঙ্গলবার থেকে বিএনপির মনোনয়ন ফরম বিতরণ শুরু বাইডেন ২৪ নভেম্বর নতুন মন্ত্রী পরিষদের নাম ঘোষণা করবেন পুরনো রোলেই পরের শ্রেণিতে উঠবে প্রাথমিকের শিক্ষার্থীরা নাইজেরিয়ায় মসজিদে গুলিতে নিহত ৫, ইমামসহ ৪০ জনকে অপহরণ আপনাদের সহযোগিতায় ছোট্ট মেয়ে শিশুটি পেয়ে যেতে পারে তার পরিবার
ঠাকুরগাঁওয়ে বন্ধু হত্যার দায়ে ৩ বন্ধুর মৃত্যুদন্ড

ঠাকুরগাঁওয়ে বন্ধু হত্যার দায়ে ৩ বন্ধুর মৃত্যুদন্ড


ফটো-ফিরোজ সুলতান

ফিরোজ সুলতান, ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি: ঠাকুরগাঁওয়ে ৩ বন্ধু কর্তৃক রেজাউল ইসলাম (২০) নামের অপর আরেক বন্ধুকে অপহরন ও শ্বাসরোধ করে আগুনে পুড়িয়ে মারার চাঞ্চল্যকর মামলায় ৩ জনকে মৃত্যুদন্ড দিয়েছে আদালত। এসময় তাদের ৩ জনকে পৃথক ভাবে ১০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে ১ বছরের সশ্রম কারাদন্ড, অপর জনকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে ১ বছরের  সশ্রম কারাদন্ড এবং অপর আসামীকে ৩ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে ৩ মাসের সশ্রম কারাদন্ড প্রদান করা হয়। গতকাল বৃহস্পতিবার ( ২৯ অক্টোবর) এ রায় প্রদান করেন ঠাকুরগাঁও অতিরিক্ত দায়রা জজ বি.এম. তারিকুল কবীর। মৃত্যুদন্ড প্রাপ্ত সুইট আলম নওগা জেলার  বারিল্লা উত্তরপাড়া গ্রামের মৃত আকবর আলী সর্দারের ছেলে, মেকদাদ বিন মাহতাব ওরফে পলাশ দিনাজপুর জেলার চিরিরবন্দর উপজেলার দক্ষীণ পলাশবাড়ি গ্রামের মাহতাব উদ্দিন শাহর ছেলে, হাসান জামিল ঠাকুরগাঁও জেলার বালিয়াডাঙ্গি উপজেলার ভানোর সরকারপাড়া গ্রামের বজির উদ্দিনের ছেলে। এদের মধ্যে হাসান জামিল মহামান্য হাইকোর্ট থেকে ভ‚য়া জামিন দেখিয়ে পলাতক রয়েছে। মামলা সুত্রে জানাযায়, দন্ড প্রাপ্ত সুইট আলম, মেকদাদ বিন মাহতাব ওরফে পলাশ ২০১৫ সালের মার্চের ৪ তারিখে দিনাজপুর জেলার চিরিরবন্দরের বগুড়াতলি বাজার হতে তাদের বন্ধু রেজাউল ইসলামকে তার মটরসাইকেলে করইে অপহরন করে ঠাকুরগাঁও জেলার বালিয়াডাঙ্গি উপজেলার  ভানোর ইউনিয়নের আরেক বন্ধু হাসান জামিলের বাসায় নিয়ে আসে। পরদিন ৫ তারিখে তারা রেজাউলের ব্যবহৃত মোটরসাইকেলটি কেড়ে নেয় ও তাকে সরকারপাড়া গ্রামের সলেমানের বাঁশঝাড়ে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে এবং লাশ পুড়িয়ে বিকৃত করে ওই বাঁশঝাড়েই ফেলে রাখে। ৬ তারিখে স্থানীয় লোকজন বালিয়াডাঙ্গি পুলিশে খবর দিলে লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। লাশের চেহারা বোঝা না যাওয়ায় পুলিশ বাদি হয়ে অজ্ঞাতানামা মামলা দায়ের করে। অপরদিকে রেজাউলের পরিবারের লোকজন তাদের সন্তানকে ২ দিন ধরে না পেয়ে দিনাজপুর র‌্যাব ১৩ কে বিষয়টি অবগত করেন।  র‌্যাব ১৩ এর সদস্যরা মোবাইল ট্রাকিংয়ের মাধ্যমে রেজাউলের খুনের বিষয়টি উদঘাটন করে। এরই প্রেক্ষিতে গতকাল এ মামলার রায় হয় বিচারিক আদালতে।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার এবং লাইক করুন..
visitor counter
All rights reserved © 2020 দেশের গর্জন | Desher Garjan
Design & Developed BY Subrata Sutradhar
Translate »