শিরোনামঃ
নরসিংদীতে ঘোড়াশালে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় বীর মুক্তিযোদ্ধা সিরাজুল ইসলামের দাফন সম্পন্ন বাপ্পারাজ-সম্রাটসহ পরিবারের ছয় সদস্য করোনায় আক্রান্ত হাসপাতাল থেকে বাসায় ফিরলেন রুহুল কবির রিজভী চলমান কাজ শেষ হলে পরবর্তী কাজ পাবেন ঠিকাদার: প্রধানমন্ত্রী বাবার সেবা করতে গিয়ে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ফারুকের মেয়ে পাইকগাছায় প্রতারক চ্ক্র গ্রুপের প্রতারনা ও মানব পাচার আইনে মামলা স্বামী-স্ত্রী গ্রেফতার পাইকগাছায় ছাত্রনেতাসহ ৩ জনে অতিরিক্ত মদ‍্যপানে মৃত্যু-১ রূপগঞ্জে উপজেলা ছাত্রলীগের আলোচিত মুখ ইমন নরসিংদীতে আরও ৫ জন করোনায় আক্রান্ত, মোট শনাক্ত ২৫৯৫ ঠাকুরগাঁওয়ে আদিবাসীদের ৩ দফা দাবিতে মানববন্ধন
জুয়া খেলে নিঃস্ব সুরিয়াবোর মোক্তারের প্রতারনার ফাঁদ

জুয়া খেলে নিঃস্ব সুরিয়াবোর মোক্তারের প্রতারনার ফাঁদ


ফটো-প্রতীক

মোঃ রিপন মিয়া, রূপগঞ্জ (নারায়ণগঞ্জ) প্রতিনিধি: জুয়া খেলে সব হারিয়ে প্রতারণার ফাঁদ পেতে বিভিন্ন জনকে হয়রানী করে অর্থ আদায় যার পেশা। শুধু তাই নয়, স্ত্রীদের দিয়ে মামলার ভয় দেখিয়ে ব্যবসায়ীসহ প্রতিবেশিদের কাছ থেকে টাকা আদায় কিংবা একই জমি একাধিকবার বিক্রির নামে বায়নার টাকা নিয়ে উঁধাও হয়ে আবার ফিরে এসে পাওনাদারের হাতে পায়ে ধরে সময় নিয়ে ফের আরেকটি প্রতারণা করে বাড়িছাড়াই যার অতীত ইতিহাস। নাম তার মোক্তার মিয়া(৪৫)। নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জের সুরিয়াবোর এলাকার মৃত ইন্নত আলীর ছেলে সে। একে একে ৬টি বিবাহ করায় আর চিহ্নিত জুয়ারী হিসেবে স্থানীয়ভাবে রয়েছে তার ব্যাপক পরিচিতি। জুয়া খেলে পরপর নিজের ভিটেটুকু বিক্রি করে সর্বহারা সে। তবু থামেনি তার প্রতারণা কৌশল। যতই প্রতারণা করে অর্থ আদায় করে সবটুকুই জুয়া খেলে হেরে ফের আরেক প্রতারণার ফাঁদ পাতে। টার্গেট করে নতুন কোন অর্থের মালিক প্রতিবেশি কিংবা স্থানীয় ব্যবসায়ীকে। অভিযোগ রয়েছে তার অপকর্মে স্ত্রীরা রাজি না হলেই তালাক দিয়ে নতুন বিয়ে করার। এমন নানা অপকর্মের ফিরিস্তি পাওয়া যায় ওই মোক্তারে বিরুদ্ধে। স্থানীয় সূত্র জানায়, জাঙ্গীর মৌজায় মোক্তার হোসেন তার পৈত্রিকভাবে সম্পদ প্রাপ্ত হয় ৪ শতকের। সে জমিতে মাটির ঘর করে সুরিয়াবো এলাকায় বসবাস করে আসছিলো । মাধবদী এলাকার রেহানাকে বিয়ে করে সংসার শুরু করে। কিন্তু জুয়া খেলতে খেলতে এক শতক করে ৪ বারে ওই সম্পদ বিক্রি করে দেয় প্রতিবেশি ও স্থানীয় আবাসন কোম্পানীর কাছে। এভাবে বারবার স্ত্রীরা চলে গেলেও ধারাবাহিকভাবে কুমিল্লার দেবীদ্বার ও সদরে দুটি, নরসিংদী এলাকার হনুফা, টঙ্গিতে একটিসহ মোট ৬টি বিয়ে করে সে। আর প্রতিটা বিয়ে জুয়া ও চুরির অভিযোগ থাকায় স্ত্রীরা সংসার ছেড়ে চলে যায়। তবে তার প্রতারণার সনে খাপ খাইয়ে চলা ৩ সন্তানের জননী হনুফাকে নিয়েই এখন সংসার তার। সম্প্রতি সব হারিয়ে তার স্ত্রী হনুফাকে দিয়ে নতুন ফাঁদ পেতেছে ওই প্রতারক। নারী ধর্ষণ মামলার ভয় দেখিয়ে প্রতিবেশি ইয়াকুবের কাছ থেকে টাকা আদায়ের ফন্দি করলে গ্রামবাসির তোপের মুখে পড়ে মোক্তার ও তার স্ত্রী হনুফা। সুরিয়াবো এলাকার বাসিন্দা আয়েত আলীর ছেলে হিমেল ওরফে ইয়াকুব জানায়, একই জমি একাধিক লোকের কাছে বিক্রির চেষ্টা করায় আনন্দ পুলিশ হাউজিং ও আশালয় আবাসন কোম্পানী একাধিকবার শালিস করে টাকা ফেরত চায়্। কিন্তু সে টাকা আজো ফেরৎ দেয়নি সে। এভাবে একই জমিতে ভিন্ন লোকের কাছ থেকে বায়না নিয়েও প্রতারণা করে সে। আর এসব প্রতারণা করা টাকা কোনটাই সংসারে খরচ না করায় কোন স্ত্রীই তার ঘর সংসারে স্থায়ী হয়না। এভাবে জুয়া খেলার কারনে তার স্ত্রীরা একে একে তালাক দিয়ে চলে যায়। মোক্তার আবার বিয়ে করে। এভাবে জুয়া আর নতুন সংসার সাজাতেই তার প্রতারণার টাকা শেষ হয়ে যায়। শুরু হয় নতুন ফন্দি। ওই বাসিন্দা আরো জানায়, মোক্তার তার জমি বিক্রি করে নিঃস্ব হয়ে বিক্রিত জমিতেই ঘর করে থাকার দাবী করে। এতে রাজি না হলে স্ত্রী হনুফা(৪৮) কে দিয়ে নারী নির্যাতন ও ধর্ষন মামলা দেয়ার হুমকী দেয়। এতে আইনি আশ্রয় নেয় ওই প্রতিবেশি। একইভাবে জাঙ্গীরের আইনজীবি এ্যাডভোকেট সাখাওয়াত হোসেনের কাছ থেকে জমি বিক্রির কথা বলে বায়না গ্রহণ করে। পরে ওই টাকা ফেরত চাইতে গেলে একইভাবে মামলা দিয়ে হয়রানী করার চেষ্টা করে। এ বিষয়ে অভিযুক্ত মোক্তার মিয়া বলেন, আমি জুয়া খেলতাম। এখন ছেলে মেয়েরা বড় হচ্ছে তেমন খেলি না। তাছাড়া এটা আমার জীবন ধ্বংস করে দিয়েছে। আমার বাপের যা জমি ছিলো কিছু বিক্রি করেছি। আরো জমি আছে। ওই জমিতে আবাসনের বালি ফেলা হয়েছে। কিছু প্রভাবশালীরা দখল করে নিয়েছে। তাই ওই জমি বিক্রির জন্য বিভিন্ন জনের কাছ থেকে বায়না নিয়েছি। আমি কোন প্রতারণা করিনি। আর বহু বিয়ে করা অন্যায় কিছু না। এসব বিষয়ে রূপগঞ্জ ইউপি ৬নং ওয়ার্ড সদস্য আব্দুল্লাহ আল মামুন দোলন বলেন, মোক্তার ও হিমেল ওরফে ইয়াকুবদের সনে জমি নিয়ে বিরোধ আছে জেনেছি। তবে ওই মোক্তার জুয়া খেলে ও বহু বিবাহ করে নিঃস্ব প্রায়। এ বিষয়ে রূপগঞ্জ থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি মাহমুদুল হাসান বলেন, নারী নির্যাতন , ধর্ষন বিষয়ে কেউ অভিযোগ করলে যাচাই বাচাই করে ঘটনার সততা থাকলে পরেই আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়। সুরিয়াবোর এমন একটি ঘটনা জেনেছি। তদন্ত করে জড়িতদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার এবং লাইক করুন..
visitor counter
All rights reserved © 2020 দেশের গর্জন | Desher Garjan
Design & Developed BY Subrata Sutradhar
Translate »