এমসি কলেজে গণধর্ষণ: ছাত্রলীগের ৮ নেতা-কর্মীর বিচার

এমসি কলেজে গণধর্ষণ: ছাত্রলীগের ৮ নেতা-কর্মীর বিচার শুরু


ফটো-সংগৃহীত

গর্জন প্রতিবেদকঃ সিলেটের এমসি কলেজ ছাত্রাবাসে স্বামীকে বেঁধে দলবেধে স্ত্রীকে ধর্ষণের ঘটনায় ছাত্রলীগের আট নেতার বিচার শুরু হয়েছে।

রোববার সিলেটের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক মো. মোহিতুল হকের আদালতে আসামিদের উপস্থিতিতে এ মামলার বিচার কাজ শুরু হয়। আলোচিত এই ধর্ষণ মামলায় গণর্ধষণ, অপহরণ ও গণধর্ষণের সহযোগিতার অভিযোগে চার্জ গঠন করা হয়। একই সঙ্গে আদালত তিন আসামির দাখিলকৃত ডিসচার্জ পিটিশনও না মঞ্জুর করেছেন।

আদালতের এপিপি এডভোকেট রাশেদা খানম জানিয়েছেন, এমসি কলেজ ছাত্রাবাসে আলোচিত ধর্ষণ মামলার বিচার শুরু হয়েছে। আগামী ধার্য্য তারিখে আদালতে স্বাক্ষ্য গ্রহণ হবে।

ধর্ষণ মামলার আসামী সাইফুর রহমান, মাহবুবুর রহমান রনি ও রবিউল হাসান ইসলামের পক্ষে অভিযোগপত্রের উপর ডিসচার্জ পিটিশন দাখিল করলে আদালত শুনানী শেষে তা না মঞ্জুর করেন। এসময় অর্জুন লস্কর ও মাহবুবুর রহমান রনির আইনজীবীরা জামিন চাইলে আদালত তা না মঞ্জুর করেন।

গত বছরের ২৫শে সেপ্টেম্বর সিলেটের এমসি কলেজের ছাত্রাবাসে স্বামীকে আটকে রেখে স্ত্রীকে দল বেঁধে ধর্ষণ করা হয়। গত ৩রা ডিসেম্বর ছাত্রলীগের আট নেতা-কর্মীকে অভিযুক্ত করে মামলার অভিযোগপত্র আদালতে দাখিল করেন তদন্ত কর্মকর্তা ও মহানগর পুলিশের শাহপরান থানার পরিদর্শক (তদন্ত) ইন্দ্রনীল ভট্টাচার্য।

অভিযোগপত্রে সাইফুর রহমান, শাহ মাহবুবুর রহমান ওরফে রনি, তারেকুল ইসলাম ওরফে তারেক, অর্জুন লস্কর, আইনুদ্দিন ওরফে আইনুল ও মিসবাউল ইসলাম ওরফে রাজনকে দল বেঁধে ধর্ষণের জন্য অভিযুক্ত করা হয়। আসামি রবিউল ইসলাম ও মাহফুজুর রহমান ওরফে মাসুমকে ধর্ষণে সহায়তা করার জন্য অভিযুক্ত করা হয়।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার এবং লাইক করুন..
visitor counter
All rights reserved © 2021 দেশের গর্জন | Desher Garjan
Design & Developed BY Subrata Sutradhar
Translate »